শেরপুর সদর উপজেলায় ১০ বছর বয়সী এক মাদরাসাছাত্রীকে জুস কিনে দেওয়ার কথা বলে ধানক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করেছে ৫৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার কামারেরচর ইউনিয়নের ডুবারচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

অভিযুক্ত আব্দুর রাজ্জাক সরকার (৫৫) ডুবারচর ভাটিপাড়া সরকার বাড়ির মৃত মামুন সরকারের ছেলে। স্থানীয় লোকজন তাকে আটকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। এ ঘটনায় শেরপুর সদর থানায় একটি মামলা হয়েছে। দুপুরে জেলা সদর হাসপাতালে শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে ১০ বছরের ওই শিশু মাদরাসায় যাচ্ছিল। কুয়াশাঢাকা সকালে ওই রাস্তায় লোকজন ছিল না। তখন আব্দুর রাজ্জাক সরকার মেয়েটিকে গ্রামের দোকান থেকে জুস কিনে দেওয়ার কথা বলে পাশের ধানক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে মেয়েটির চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন গিয়ে রাজ্জাককে আটক করে। এরপর উত্তেজিত জনতা তাকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে দেয়।

স্থানীয়রা জানায়, ইতোপূর্বে রাজ্জাক তার নিকটাত্মীয় দুই মেয়েকে ধর্ষণ করলে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি আপোষ-রফা করা হয়। পরে সে একটি ছেলেকেও বলৎকার করলে সেই মামলায় প্রায় তিন বছর জেল খাটে।

শেরপুর সদর থানার ওসি (তদন্ত) বন্দে আলী মিয়া বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় নিয়মিত মামলা হয়েছে। আসামিকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ভুক্তভোগীর ডাক্তারি পরীক্ষার রিপোর্ট এলে চূড়ান্ত আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।