গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার পর ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্বে আসছেন আসাদুর রহমান কিরণ, যিনি এর  আগেও আড়াই বছর ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের অফিস আদেশে বলা হয়, জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বরখাস্ত করার পর সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব পালনের জন্য তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি মেয়র প্যানেল গঠন করা হয়েছে। তারা যথাক্রমে গাজীপুরের ৪৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আসাদুর রহমান কিরন, ৫২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো, আব্দুল আলীম মোল্লা ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড-১০ এর কাউন্সিলর আয়েশা আক্তার।

স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন, ২০০৯ এর ধারা ২০(২) এর বিধান মতে মেয়রের অবর্তমানে এই প্যানেলের ১নং সদস্য ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করবেন। 

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রথম মেয়র এম এ মান্নান। বিএনপি সমর্থিত মেয়র ২০১৫ সালে নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার হলে প্যানেল মেয়র হিসেবে কিরণ দায়িত্ব পান। 

ভারপ্রাপ্ত সিটি মেয়র ও ৪৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আসাদুর রহমান কিরণের সঙ্গে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া মেয়র জাহাঙ্গীরের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। জাহাঙ্গীরের স্বেচ্ছাচারিতা, দুর্নীতি ও অনিয়ম কোনো ভাবেই কিরণ মেনে নিতে পারেননি। বারবার প্রতিবাদ করেছেন। কিরণ প্যানেল মেয়র নির্বাচনের দাবি জানালেও তাতে জাহাঙ্গীর কর্ণপাত করেননি বলে অভিযোগ রয়েছে। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে বিরোধ ছিল প্রকট।

দ্বিতীয়বারের মতো ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পাওয়ার পর আসাদুর রহমান কিরণ সমকালকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন সেটার সম্মান আমি রাখব। অতীতের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ৪০ লাখ মানুষের গাজীপুর সিটি করপোরেশনের জন্য কাজ করে যাব। নগরবাসীর জন্য ভালো কিছু করব। সাধারণ জনগণ ছাড়াও দলীয় নেতাকর্মীরা যাতে আমার কোনো কাজে কিংবা আচরণে কষ্ট না পান, আমি সচেষ্ট থাকব।’ 

আরও পড়ুন

গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীরকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে রাজবাড়ীতে মামলা