কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর সৈয়দ মো. সোহেল ও তার সহযোগী খুনের মামলায় আরও দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

এরমধ্যে আশিকুর রহমান রকিকে লালমনিরহাটের চন্ডীবাজার এলাকা থেকে এবং আলম মিয়াকে কুমিল্লা সদর উপজেলার বড়জালা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। শনিবার সন্ধ্যায় বিষয়টি জানান র‌্যাব-১১, সিপিসি-২, কুমিল্লার অধিনায়ক মেজর সাকিব হোসেন।

এর আগে আলোচিত এ মামলায় মাসুম ও সুমন নামে আরও দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, গুলি চালিয়ে কাউন্সিলর ও তার সহযোগীকে হত্যার পর ঘাতকরা এলাকা ছেড়ে দেশের বিভিন্নস্থানে গিয়ে আত্মগোপন করেন। পরে মামলাটি নিয়ে ছায়া তদন্ত শুরু করে র‌্যাব। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় র‌্যাবের একাধিক টিম আসামিদের গ্রেপ্তার করতে দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়।

এরপর শনিবার দুপুরে মামলার এজাহার নামীয় আসামি আশিকুর রহমান রকিকে লালমনিরহাটের চন্ডীবাজার এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি নগরীর তেলিকোনা এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে।

এছাড়া অপর আসামি আলম মিয়া সুজানগর পূর্ব পাড়া (বউ বাজার) এলাকার মৃত জানু মিয়ার ছেলে। এবং একই মামলার প্রধান আসামি শাহ আলমের বড় ভাই।

র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক মেজর সাকিব হোসেন সমকালকে বলেন, ঘটনাস্থলের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ ও তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ঘটনায় জড়িত অপর আসামিদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করতে র‌্যাবের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে। শিগগিরই এ মামলায় জড়িত অন্যা আসামিদেরও গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে।