নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার গারাগ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন চলাকালে দুই চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে বিজিবি নায়েক রুবেল নিহত হয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল আওয়াল সমকালকে এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন,‘ভোট গণনার সময় দুই প্রার্থীর সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে পুলিশ ও বিজিবি সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে যান। তখন দুই পক্ষের সংঘর্ষে নায়েক রুবেল নিহত হন।’

তিনি জানান, গারাগ্রামে তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতীকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন জাতীয় পার্টির মারুফ হাসান অন্তিক। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জনাব আলী চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছিলেন আনারস প্রতীকে। গারাগ্রাম ইউনিয়নের ৫ নং কেন্দ্র পশ্চিম দলিরাম মাঝাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের পর বিকেলে যখন ভোট গণনা শুরু হয়, তখন জানা যায়, জনাব আলী ৫৪ ভোটে এগিয়ে আছেন। তখনই অন্তিকের সমর্থকরা জনাব আলীর সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ান। তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মাঠে থাকা নায়েক রুবেল নিহত হন। 

এ ঘটনায় হতাহতের বিষয়ে তিনি আব্দুল আওয়াল কোনো মন্তব্য করেননি। আইনি পদক্ষেপের বিষয়ে পরে জানানো হবে বলে জানান তিনি।

ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ললিত চন্দ রায় সমকালকে বলেন, ‘ভোট গণনার পর জনাব আলীকে বিজয়ী প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হলে অন্তিকের সমর্থকরা নির্বাচনী কর্মকর্তাদের ওই কেন্দ্রে আটকে রাখেন। এসময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সচেষ্ট হলে তাদের সঙ্গে মারুফ হোসেন অন্তিকের সমর্থকদের সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে রুবেল নিহত হন। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়েছে।’ 

এ বিষয়ে নীলফামারী, পুলিশ ও বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা কোনো মন্তব্য করেননি।