কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় সিআইডির সাব-ইন্সপেক্টর পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নিয়ে সটকে পড়ার সময় সাজু আহমেদ পায়েল (২৬) নামের এক প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার রমনা বাজার রেলওয়ে ষ্টেশন এলাকায় এলাকাবাসী তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। তার বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় চুরি ও প্রতারণাসহ বিভিন্ন অপরাধ সংঘটনের অভিযোগে ৯টি মামলা রয়েছে বলে দাবি করেন চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আনোয়ারুল ইসলাম।

ওসি আনোয়ারুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার বিকেল ৪টার দিকে প্রতারক সাজু আহমেদ পায়েল নিজেকে সিআইডির সাব ইন্সপেক্টর পরিচয় দিয়ে আলমগীর ইসলামের মুদি দোকানে গিয়ে অবৈধ মালামাল আছে বলে ভয়ভীতি দেখিয়ে ১০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। হুমকি-ধামকিতে ভীত হয়ে আলমগীর ইসলাম ঘুষের টাকার পরিমাণ কমানোর জন্য অনুনয়-বিনয় করতে থাকেন। এরই একপর্যায়ে ঘুষের টাকার পরিমাণ এক হাজারে নেমে আসে। এরপর ওই ভুয়া সাব ইন্সপেক্টরকে এক হাজার দেওয়া হলে সে দ্রুত সটকে পড়ার চেষ্টা করলে এলাকাবাসীর সন্দেহ হয়। পরে তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুদি দোকানী আলমগীর ইসলাম বাদী হয়ে সাজু আহমেদ পায়েলকে আসামি করে থানায় প্রতারণার অভিযোগ এনে মামলা করছেন।

আসামি সাজু আহমেদ পায়েল রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার টেপা মধুপুর গ্রামের আব্দুল আউয়ালের ছেলে বলে জানা গেছে।

ওসি আরও জানান, প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্যানুযায়ী- প্রতারক সাজু আহমেদ পলাশের বিরুদ্ধে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া, হবিগঞ্জের বাহুবল ও নবীগঞ্জ, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের টঙ্গি পশ্চিম, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতায়ালী, ফটিকছড়ি, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতয়ালী, নীলফামারীর ডিমলা ও মৌলভীবাজারের সদর ও বড়লেখা থানায় মামলা রয়েছে। এই মামলাগুলো কী অবস্থায় আছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।