ঢাকা শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪

এমপি নদভীর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বীর সমর্থককে অপহরণের অভিযোগ

চট্টগ্রাম-১৫ আসন

এমপি নদভীর বিরুদ্ধে  প্রতিদ্বন্দ্বীর সমর্থককে  অপহরণের অভিযোগ

এমপি নদভী

 সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০০:৫৫

চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) সংসদীয় আসনে নৌকার প্রার্থী আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী এমপি। দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর এই সদস্যের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর এক সমর্থককে তুলে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ব্যক্তিকে অপহরণ করে ক্ষমতাসীন দলের এই সংসদ সদস্য নিজ বাড়িতে আটকে রেখেছেন বলে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত দিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান। একই সঙ্গে ডা. মিনহাজকে সমর্থন না করতেও অপহৃত ব্যক্তিকে চাপ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
জানা গেছে, দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১৫ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা. মিনহাজের মনোনয়নপত্রে সংযুক্তি হিসেবে দাখিল করা ১ শতাংশ সমর্থনকারী ভোটার তালিকার মধ্যে আছেন সৈয়দুল আলম। লোহাগাড়া উপজেলার পুটিবিলা এলাকার সৈয়দুলকে তুলে নিয়ে এমপি নদভীর নগরীর চান্দগাঁও রুপালি আবাসিকের তৃতীয় তলার অফিস কক্ষের পাশের কম্পিউটার রুমে আটকে রাখার অভিযোগ করেছেন ডা. মিনহাজ। তিনি রোববার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে খুদে বার্তা পাঠিয়ে এবং গতকাল সোমবার সকালে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক আবুল বাশার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানের কাছে এ অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে বলা হয়, সৈয়দুলকে বাসায় আটকে রেখে ডা. মিনহাজের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে স্বাক্ষর দেয়নি বলে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য চাপ দেওয়া হয়েছে। এর অংশ হিসেবে গতকাল অপহৃত ব্যক্তিকে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছেও হাজির করা হয়। অথচ সৈয়দুল লোহাগাড়া উপজেলায় শনিবার সশরীরে উপস্থিত থেকে ডা. মিনহাজের সমর্থনে মনোনয়নপত্রে স্বাক্ষর করেছেন।
ডা. মিনহাজ বলেন, আমার প্রতিদ্বন্দ্বী এমপি নদভী এবারই যে এ ঘটনা ঘটিয়েছেন তা নয়; মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর থেকে তিনি আমার সমর্থকদের বিভিন্নভাবে হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছেন। তিনি দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশ অমান্য করে সহিংস পরিস্থিতি তৈরির মাধ্যমে এই নির্বাচন অনুষ্ঠানে বাধা দিচ্ছেন। আমি এর প্রতিকার চাই। 

সৈয়দুল উদ্ধার হয়েছে কিনা– জানতে চাইলে ডা. মিনহাজ বলেন, সে কোথায় আছে, কেমন আছে– এখনও আমি জানি না। আমি আশঙ্কা করছি, তাকে গুম করা হয়েছে।
তবে প্রতিদ্বন্দ্বীর সমর্থককে অপহরণের অভিযোগ অস্বীকার করে এমপি নদভী বলেন, এ ধরনের বিষয় আমার জানা নেই। নৌকার প্রার্থী হওয়ায় প্রতিপক্ষ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে এবং প্রপাগান্ডা ছড়িয়ে দুর্নাম রটাচ্ছে। 

চট্টগ্রাম-১৫ আসনের রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক আবুল বাশার বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক সৈয়দুলকে তুলে নেওয়ার অভিযোগের বিষয়ে ডা. মিনহাজকে ১০০ ধারায় মামলা করতে হবে। এ ছাড়া বিষয়টি দেখার জন্য নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন

×