পাবনার ঈশ্বরদীতে পূর্ব শত্রুতা ও ইউপি নির্বাচনে জয়-পরাজয় নিয়ে বিরোধে জড়িয়ে দুই বংশের লোকজনদের মধ্যে গোলাগুলি-সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের চরকুড়–লিয়া গ্রামে পদ্মা নদীর পাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে দুই জন গুলিবদ্ধসহ কম পক্ষে ১১ জন আহত হন।

গুলিবিদ্ধ দুই জন হলেন একই গ্রামের নুরু মালিথার ছেলে আলম বাদশা, জামাল মালিথার ছেলে জনি মালিথা । আহতদের মধ্যে কয়েকজনকে পাবনা জেনারেল হাসপাতাল ও বাকিদের ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে পাবনা পুলিশের ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবীর ও ঈশ্বরদী থানার ওসি আসাদুজ্জামানসহ পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও প্রত্যক্ষদর্শীরা তাদের নাম পরিচয় গোপন রাখার শর্তে জানান, স্বপন প্রাং, আলম হোসেন, জামাত মালিথা ও বাবলু সরদারের মধ্যে বংশগত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

তারা আরও জানান, মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে আলম বাদশাসহ কয়েকজন বাধের দোকানে বসে ছিলেন। এসময় ইউপি মেম্বার আসাদুলসহ চান প্রামাণিক, ফারুক, তরিকুল ইসলামসহ আরো কয়েকজন সেখানে এসে হামলা চালায়। একপর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি ও দেশী অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষ বাধে। এতে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং পাশের আলহাজ্বমোড় পর্যন্ত সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

ঈশ্বরদী থানার ওসি আসাদুজ্জামান এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা এবং এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় ঈশ্বরদী থানায় এখনো কোন পক্ষ মামলা দায়ের করেনি বলেও জানান ওসি।