পাবনায় চাঞ্চল্যকর হেনা খাতুন হত্যা মামলায় আসামি রফিকুল ইসলাম রহিমকে (৪০) মৃত্যুদণ্ড এবং হত্যায় সহযোগিতা করায় নুরুল ইসলাম নামের অপর আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ সময় উভয় আসামিকে ২৫ হাজার টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে।

সোমবার  দুপুরে পাবনা জেলা দায়রা বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আহসান তারেক এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি দেওয়ান মজনুল হক জানান, ২০১৫ সালের ১৮ আগস্ট সদর উপজেলার বলরামপুর পদ্মা নদী থেকে বিধবা নারী হেনা বেগমের (২৫) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে হেনা বেগমের মোবাইল ফোনের কললিস্টের সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডে জড়িত রফিকুল ও রহিমকে আটক করা হয়।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা জানায়, রিকশাচালক রফিকুল বিধবা হেনা বেগমের সরলতার সুযোগ নিয়ে তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। হেনা বেগম তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে তাতে অস্বীকৃতি জানায় রফিকুল। একপর্যায়ে কৌশলে পদ্মা নদীপাড়ে বেড়ানোর কথা বলে ডেকে নিয়ে নুরুলের সহযোগীতায় শ্বাসরোধ করে হত্যার পর হেনার মরদেহ নদীতে ফেলে দেন। এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আসামিরা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিও দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি আরও জানান, দীর্ঘ শুনানি শেষে সাক্ষ্য প্রমাণ ও আসামিদের জবানবন্দিতে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত রফিকুলকে মৃত্যুদণ্ড ও নুরুলকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রায় ঘোষণার সময় আসামি রফিকুল আদালতে উপস্থিত থাকলেও নুরুল পলাতক রয়েছেন।