নড়াইল সদর হাসপাতালে গিয়ে এমপি মাশরাফি বিন মুর্তজা যে আট চিকিৎসককে শোকজ করেছিলেন, তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। এমপির নির্দেশেই সোমবার এ শোকজপত্র প্রত্যাহার করা হয়।

এদিকে মাশরাফি হাসপাতালে যাওয়ার পর তার কাছে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ করায় রোগীর এক আত্মীয়কে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এমপি মাশরাফি সদর হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শনে যান। এসময় ডায়রিয়া ওয়ার্ডের শিশু রোগী রুকাইয়ার দাদি তহমিনা বেগম মাশরাফির কাছে হাসপাতালের বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ দেন। এ কারণে রোববার দুপুরে তাকে মারধর করেন হাসপাতালটির আয়া পরভীন খানম।

তহমিনা অভিযোগ করে বলেন, মাশরাফি হাসপাতালে এলে অভিযোগ করেছিলাম। হাসপাতালে ময়লা থাকে, ডাক্তাররা ঠিকমতো দেখেন না, সেবা দিচ্ছেন না, খাবার দেয় না, এসব কথা বলেছিলাম। সে জন্য আমাকে মেরে প্রতিশোধ নিয়েছেন।

সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আসাদ উজ-জামান মুন্সি বলেন, চিকিৎসক-কর্মচারীদের সকাল ৮টায় হাসপাতালে আসার কথা থাকলেও শনিবার সকাল ৯টার পরে আসায় আটজন চিকিৎসক ও দুইজন মেডিকেল প্যাথলজিস্টকে শোকজ করেছিলেন এমপি মাশরাফি। পরে রোববার বিকেলে হাসপাতালে এসে তিনি নিজেই আবার এ শোকজ প্রত্যাহার করে নেন।