নানিকে শেষ বারের মতো দেখে সন্তানসহ আর বাড়ি ফেরা হলো না জেসমিনের (২৮)। ঢাকা থেকে বরগুনাগামী অভিযান-১০ লঞ্চের অগ্নিকাণ্ডে মেয়েকে হারান তিনি। বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে ঝালকাঠি সদরের দিয়াকুল গ্রামের কাছে সুগন্ধা নদীতে লঞ্চটিতে আগুন লাগে।

দশ-বারদিন আগে জেসমিনের নানি মারা যায়। নানিকে শেষ বারের জন্য দেখার জন্য স্বামী ও দুই সন্তানকে সাথে নিয়ে বরগুনা থেকে কেরানীগঞ্জে আসেন তিনি। ব্যবসার কাজে স্বামী আগেই চলে গেলেও জেসমিন তার সন্তানসহ অভিযান-১০ লঞ্চে বরগুনা ফিরছিলেন। এসময় লঞ্চে আগুন লাগলে মেয়ে মাহিনুরের (০৭) পুরো শরীর ঝলসে যায়। বরগুনা থেকে ঢাকা আনার পথেই মাওয়া লঞ্চ ঘাটে মেয়ের মৃত্যু হয়। 


শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে জেসমিনের মামা জানান, জেসমিনের বাবার বাড়ি কেরানীগঞ্জের সুবাইড্ডা ইউনিয়নে। তার নানির বাড়িও একই এলাকায়। নানি মারা গেলে সে স্বামী সন্তানদের নিয়ে তাকে দেখতে আসে। গতকাল রাতে অভিযান-১০ লঞ্চে করে স্বামীর বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিলে নদীর মধ্যে সবকিছু লণ্ডভণ্ড করে দেয় আগুন। জেসমিন ও তার ছেলে তামিমের (১০) মুখ, হাত-পাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেছে।

নানীর শোক না কাটতেই মেয়েকে হারিয়ে জেসমিন শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ছেলেকে নিয়ে কাতরাচ্ছেন।