ঢাকা শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪

শীতজনিত ডায়রিয়া রোগী বেড়েছে, স্যালাইন সংকট

শীতজনিত ডায়রিয়া রোগী বেড়েছে, স্যালাইন সংকট

তাড়াশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অন্য রোগীদের সঙ্গে চলছে ডায়রিয়ায় আক্রান্তদের চিকিৎসা সমকাল

 তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩ | ২৩:১৮

শীত মৌসুম শুরু না হতেই সিরাজগঞ্জের তাড়াশে রোটা ভাইরাসজনিত ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েছে। ছয় সপ্তাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১১১ ডায়রিয়া রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। একই সময়ে বহির্বিভাগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েছেন আরও ২৮০ রোগী। সীমাবদ্ধতার মধ্যেই এ রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ।
এদিকে ডায়রিয়ার প্রকোপ বাড়ার পর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কলেরা রোগের বিনামূল্যের আইভি স্যালাইনের সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে রোগীদের জন্য বাইরের দোকান থেকে আইভি স্যালাইন কিনতে বাধ্য হচ্ছেন স্বজনরা। বাইরেও প্রয়োজনের তুলনায় কম স্যালাইন পাওয়া যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন মাধাইনগর ইউনিয়নের রোগীর স্বজন মো. আজমল হক।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা মো. মনোয়ার হোসেন আইভি স্যালাইনের সংকটের কথা স্বীকার করে বলেন, প্রায় দুই মাস স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ধরনের স্যালাইন সরবরাহ নেই। এরপরও বিভিন্নভাবে ম্যানেজ করে ডায়রিয়া রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, গত নভেম্বর থেকে এলাকায় রাতের তাপমাত্রা কমতে শুরু করেছে। তখন থেকেই রোটা ভাইরাসজনিত ডায়রিয়ার প্রকোপ বাড়তে থাকে। পুরো নভেম্বর মাসে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৯১ রোগী ভর্তি হয়েছেন। ডিসেম্বরের প্রথম ছয় দিনে আরও ২০ জন ভর্তি হন। এর আগের পাঁচ সপ্তাহে ৬৭ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন।
হঠাৎ পেটব্যথার সঙ্গে পাতলা পায়খানা শুরু হয় বারুহাঁস এলাকার জেসমিন খাতুনের। পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন তিনি। তাঁর ভাষ্য, শুরুতে বাড়িতে থাকা খাবার স্যালাইন খেয়েছেন। 
কিন্তু পেটে ব্যথা ও পাতলা পায়খানার কারণে দুর্বল হয়ে পড়েছেন। পরে স্বজনরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়েছেন।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মুখে খাওয়ার স্যালাইন ও ওষুধ পেলেও আইভি স্যালাইন বাইরে থেকে কিনেছেন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত পৌর এলাকার আমানত 
আলীর স্বজন মহবত উল্ল্যা। তিনি জানান, বাজারের ওষুধের দোকানেও স্যালাইনের সংকট রয়েছে। 
এ তথ্য নিশ্চিত করে পৌর বাজারের ওষুধ ব্যবসায়ী প্রবীর সরকার জানান, ডেঙ্গুর সময় 
থেকেই আইভি স্যালাইনের সংকটের শুরু। সরবরাহকারী কোম্পানির কাছে অর্ডার দিয়েও স্যালাইন পাওয়া যাচ্ছে না।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা মো. মনোয়ার হোসেন বলেন, আইভি স্যালাইনের জন্য বগুড়ায় সরকারি প্রতিষ্ঠান এসেনশিয়াল ড্রাগস কোম্পানিতে সরবরাহপত্র পাঠানো হয়েছে। অল্প সময়ে তা পেয়ে যাবেন বলে আশা করছেন। সীমাবদ্ধতা থাকলেও ডায়রিয়া রোগীদের চিকিৎসায় তৎপর রয়েছেন চিকিৎসকরা।
 

আরও পড়ুন

×