ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

বগুড়ায় বিএনপির ২ নেতাকে গুমের অভিযোগ

বগুড়ায় বিএনপির ২ নেতাকে গুমের অভিযোগ

দেলোয়ার হোসেন, আনোয়ার হোসেন

বগুড়া ব্যুরো

প্রকাশ: ১৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০০:১৮

বগুড়ার কাহালু উপজেলায় র‍্যাব পরিচয়ে আটকের পর বিএনপির দুই নেতার খোঁজ মিলছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। তারা হলেন উপজেলা বিএনপির সহদপ্তর সম্পাদক আনোয়ার হোসেন হৃদয় এবং একই উপজেলার বীরকেদার ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন। তবে এ বিষয়ে কিছু জানে না বলে দাবি করেছে র‍্যাব। এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনের সাবেক এমপি ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন গতকাল রোববার তাঁর ফেসবুক আইডিতে লিখেছেন, ১৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টায় আনোয়ার হোসেনকে বগুড়ার শেরপুর পল্লী উন্নয়ন একাডেমির গেট থেকে এবং একই দিন রাত ৯টায় দেলোয়ার হোসেনকে জেলার দুপচাঁচিয়া হাই স্কুল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর থেকে তাদের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। আদালতেও সোপর্দ করা হয়নি।
দু’জনের পরিবার ও স্থানীয় বিএনপির নেতাদের বরাত দিয়ে মোশারফ দাবি করেন, তাদের র‍্যাব আটক করেছে। তিনি আরও বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসনটিতে বিএনপি থেকে অব্যাহতিপ্রাপ্ত ডা. জিয়াউল হক মোল্লা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে লড়ছেন। গত ১১ ডিসেম্বর তাঁর গাড়িবহরে কে বা কারা হামলা চালায়। কিন্তু এ ঘটনায় বিএনপির নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেন জিয়াউল। এর জেরে ওই দু’জনকে আটক করা হতে পারে।

তবে জিয়াউল হক বলেন, আনোয়ার ও দেলোয়ার মামলার আসামি নন। আমি তাদের বিষয়ে কিছু জানি না।
এদিকে দেলোয়ারের স্ত্রী সালমা খাতুন গত শুক্রবার দুপচাঁচিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এতে তিনি উল্লেখ করেছেন, লোকমুখে শুনেছেন, দুপচাঁচিয়া হাই স্কুল মাঠ এলাকা থেকে তাঁর স্বামীকে তুলে নিয়ে গেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এরপর থেকে তাঁর খোঁজ মিলছে না।

দুপচাঁচিয়া থানার ওসি সনাতন চক্রবর্তী বলেন, দেলোয়ারের পরিবার নিখোঁজ ডায়েরি করেছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।
এদিকে গতকাল শেরপুর থানায় জিডি করতে যান আনোয়ার হোসেনের পরিবারের লোকজন। এ বিষয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম বলেন, ‘একজন জিডি করতে এসেছিলেন। আমরা তাঁকে বলেছি, একটু খোঁজখবর নিই, আপনি সোমবার আসেন।’

আনোয়ার ও দেলোয়ারকে অবিলম্বে জনসমক্ষে হাজির করার দাবি জানিয়েছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, তাদের নিয়ে অনাকাঙ্ক্ষিত কিছু ঘটলে আওয়ামী সরকারকেই এর দায় নিতে হবে। আটক ও গুম করে রাখার ঘটনা ভয়ানক অশুভ সংকেত। বিএনপি তথা বিরোধী দলের নেতাকর্মীকে ভয় পাইয়ে দিতে সরকার এমন ঘটনা ঘটাচ্ছে।
এ বিষয়ে র‍্যাব-১২ বগুড়া ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার (পুলিশ সুপার) মীর মনির হোসেন বলেন, দেলোয়ার ও আনোয়ার নামে কাহালু থেকে বিএনপির কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। যাদের র‍্যাব গ্রেপ্তার করে, তাদের দ্রুত থানায় হস্তান্তর করা হয়।

আরও পড়ুন

×