ঢাকা বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

নিখোঁজ ব্যাপারীর লাশ তিন দিন পর উদ্ধার

নিখোঁজ ব্যাপারীর লাশ তিন দিন পর উদ্ধার

লাশ উদ্ধারের পর জসিমের স্বজনের কান্না। শুক্রবার সকালে দোহারের মুকসুদপুরে সমকাল

 দোহার (ঢাকা) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০০:৩২

ঢাকার দোহারে গরুবাহী ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ ব্যাপারী জসিম উদ্দিন ওরফে মনিরের (৪০) মরদেহ তিন দিন পর পদ্মায় ভেসে উঠেছে। গতকাল শুক্রবার সকালে দুর্ঘটনাস্থলে চার কিলোমিটার ভাটির এলাকা মুকসুদপুর পয়েন্টে তাঁর লাশ ভেসে ওঠে। স্থানীয়দের কাছ থেকে সংবাদ পেয়ে কুতুবপুর নৌপুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা তা উদ্ধার করেন। পরে স্বজনের কাছে লাশ হস্তান্তর করে পুলিশ। এ দুর্ঘটনায় নিখোঁজ জসিমের ভাগনে সিয়ামের (১২) সন্ধান মেলেনি।
নিহত জসিম উদ্দিন মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বাগড়া ইউনিয়নের জাহানাবাজ গ্রামের মোতালেব মাতবরের ছেলে। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে ফরিদপুরের টেপাখোলা হাট থেকে ৬৩টি গরু নিয়ে একটি ইঞ্জিনচালিত ট্রলার দোহার ও শ্রীনগরের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। রাত আড়াইটার দিকে দোহার উপজেলার মেঘুলা ঘাটের কাছাকাছি এলে ট্রলারের পাটাতন ছিদ্র হয়ে পানি ঢুকতে থাকে। বিষয়টি একটু দেরিতে নজরে আসে ট্রলারচালকের। এ সময় ট্রলারটি তীরে ভেড়ানোর চেষ্টা ব্যর্থ হয়। সেটি ডুবে গেলে তীরের জেলে ও স্থানীয়দের সহায়তায় ৩০টি গরু জীবিত উদ্ধার করা হয়। তবে বেঁধে রাখার কারণে বাকি গরুগুলো ট্রলারসহ পদ্মায় তলিয়ে যায়। এ সময় নিখোঁজ হন জসিম ও সিয়াম।
কুতুবপুর নৌপুলিশ ফাঁড়ি সূত্র জানায়, শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সাইনপুকুর তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ সদস্যদের সহায়তায় ঘটনাস্থলের চার কিলোমিটার ভাটি থেকে জসিমের লাশ উদ্ধার করা হয়। সংবাদ পেয়ে তাঁর পরিবারের সদস্যরা লাশ শনাক্ত করেন। তবে এখনও সিয়ামের খোঁজ মেলেনি।
এদিকে জসিমের লাশ উদ্ধারের পর মুকসুদপুর পয়েন্ট এলাকায় কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা। দোহার থানার ওসি হারুন অর রশিদ বলেন, নিহত ব্যক্তির পরিবারের কোনো অভিযোগ নেই। লাশ দাফনের জন্য স্বজনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
 

আরও পড়ুন

×