মাউন্ট মঙ্গাইনুয়েতে প্রথম দুই দিনের মত তৃতীয় দিনেও দুর্দান্ত খেললো টাইগাররা। যেখানে নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে এশিয়ার বাইরে প্রথমবার কোনো দেশের মাটিতে লিড নিতে সক্ষম হয়েছে দলটি। তবে শেষ সেশনে বোল্টের বোলিং তাণ্ডবে সেঞ্চুরির আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন মুমিনুল-লিটন। দিনশেষে বাংলাদেশের লিড দাঁড়িয়েছে ৭৩ রানে। তৃতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ৪০১ রান। ইয়াসির আলী ৩৫ বলে ১১ ও মেহেদী হাসান মিরাজ ৩৮ বলে ২০ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছেড়েছেন।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত খেলেছেন জয়। প্রস্তুতি ম্যাচের পর মূল লড়াইয়েও হেসেছে মাহমুদুল হাসান জয়ের ব্যাট। তৃতীয় দিনের প্রথম সেশনেই আউট হওয়ার আগে করেছেন ৭৮ রান। সেঞ্চুরির দেখা না পেলেও যেভাবে লড়েছেন, তাতেই জয় করে নিয়েছেন ভক্ত-সমর্থকদের হৃদয়। 

তৃতীয় দিন শেষে সাফল্যের পেছনের গল্প জানালেন মাহমুদুল হাসান হয়, 'ব্যাটিংয়ের শুরুর দিকে আমার আর সাদমান ভাইয়ের পরিকল্পনা ছিল নতুন বলটাকে কিভাবে পুরাতন করা যায় আর বল বাই বল খেলব। আমরা যদি বেশি লম্বা চিন্তা করি, তাহলে হয়তো সফল নাও হতে পারি। বল বাই বল খেললেই সফল হওয়ার সম্ভাবনাটা বেশী থাকে।

বাংলাদেশের ব্যাটাররা টেস্টেও শট খেলে। তবে ব্যতিক্রম এই টেস্টটি। এখানে ধৈর্য্যের পরীক্ষা দিয়েছে সফরকারীরা। জয় বলে, 'শট খেলার জন্য আমি উৎসুক হয়ে উঠলে শান্ত ভাই আমাকে কন্ট্রোলে থাকার জন্য বলেন। এরপর সৌরভ ভাইয়ের সাথেও আমার জুটি হয়। আমার যখন বেশি ডট হয় তখন তিনি বলেন, 'ডট বল হলে সমস্যা নাই, তুমি কন্টিনিউ করতে থাকো।'

নিউজিল্যান্ডের বাঘা বাঘা বোলিংয়ের বিপক্ষে বেশ সাবলীল ছিল বাংলাদেশি ব্যাটাররা। জয় জানালেন তাদের পারফরম্যান্সের রহস্য। তিনি বলেন, 'আমি আসলে নামের দিক দেখে খেলিনি, বল দেখে খেলার চেষ্টা করছি।”