‘ধর্ষণের অপমান’ সইতে না পেরে বিষপানের পর মৃত্যুর সঙ্গে দীর্ঘ ১৭ দিন লড়াই করে অবশেষে মারা গেল জোনাকি আক্তার (১৫) নামে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থী। শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার যোগানিয়া ইউনিয়নের কুত্তামারা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। 

শনিবার এই ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই নাজমুলের দুই ভাই সুলতান মিয়া ও লাল মিয়াকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে।

পুলিশ ও মেয়েটির বাবা আব্দুল জব্বার জানান, শেরপুর জেলা সদরের চান্দেরনগর গ্রামের চাঁন মিয়ার ছেলে নাজমুল (২৮) কুত্তামারা গ্রামে ড্রেজার দিয়ে মাটি কাটার কাজ করতো। গত ১৬ নভেম্বর রাত সাড়ে ১১টার দিকে জব্বার তার মেয়েকে বাড়িতে রেখে পাশের বাজারে চা পান করতে যান। মেয়েটির মা ঢাকার একটি পোষাক কারখানায় শ্রমিকের কাজ করেন। ওই সময় মেয়েটিকে একা পেয়ে নাজমুল জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে মেয়েটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন আসলে নাজমুল পালিয়ে যায়। 

পরে ঘটনা জেনে জব্বার পুলিশের আশ্রয় নিতে চাইলে স্থানীয় লোকজন ও মাতব্বরা তাতে বাঁধা দেয় এবং স্থানীয়ভাবে মীমাংসার উদ্যোগ নেয়। আর ঘটনা প্রকাশ পেলে সর্বনাশ হবে ভেবে জব্বার তাদের সিদ্ধান্ত মেনে নেন। একপর্যায়ে এ ঘটনা এলাকায় প্রকাশ হয়ে পড়লে মেয়েটিকে ভর্ৎসনা করে কথাবার্তা বলতে থাকে স্থানীয়রা। এ অপমান সইতে না পেরে গত ২১ ডিসেম্বর সে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। 

প্রথমে তাকে নালিতাবাড়ী ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসার পর কিছুটা উন্নতি হলে তাকে বাড়ি নেওয়া হয়। পরদিন আবারও অবস্থার অবনতি হলে পুনরায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার মারা যায় সে। এর আগে মেয়ের অবস্থা খারাপ হতে থাকলে ২ জানুয়ারি জব্বার বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে নাজমুলের দুই ভাই সুলতান ও লাল মিয়াকে গ্রেপ্তার করে শনিবার আদালতে পাঠায়।  

এই ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বলেন, ঘটনার সম্পর্কে ওরা আমাকে কিছু বলেনি। আজ যখন পোস্টমর্টেমে সমস্যা হইছে, তখন আমাকে অবহিত করছে। আমি পোস্টমর্টেমের বিষয়ে সহযোগিতা করেছি।

নালিতাবাড়ী থানার ওসি বছির আহমেদ বাদল জানান, এ ঘটনায় মেয়ের বাবা আব্দুল জব্বার বাদী হয়ে ধর্ষণ মামলা দায়ের করলে সহযোগী দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।