নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর নৌকা প্রতীকের পক্ষে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে সমাবেশে অংশ নিয়ে ভোট চেয়েছেন নারায়ণগঞ্জ ২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, সংসদ সদস্য সানজিদা খানম, কাজী মনিরুল ইসলাম মনু।

রোববার বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জপুল এলাকায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আইভীকে বিজয়ী করতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ১, ২, ৩ ও ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কর্মী সমাবেশে তারা উপস্থিত থাকেন। নির্বাচনের আচরণবিধির ২২ নম্বর ধারায় বলা আছে, সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এবং কোনো সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী নির্বাচন পূর্ব সময়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রচারণায় বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। তিনি যদি এ এলাকার ভোটার হন তাহলে শুধু ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যেতে পারবেন। নির্বাচন পূর্ব সময়ে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তার পক্ষে অন্য কোনো ব্যক্তি সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান নির্বাচনী কাজে সরকারি প্রচারযন্ত্র, সরকারি যানবাহন, অন্য কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা ভোগ এবং সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের ব্যবহার করতে পারবেন না।

৩০ নম্বর ধারায় বলা আছে, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তার পক্ষে অর্থ, অস্ত্র ও পেশীশক্তি কিংবা অস্থানীয় ক্ষমতা দ্বারা নির্বাচন প্রভাবিত করা যাবে না।

এ দুটি ধারা স্থানীয় সংসদ সদস্যরা নৌকার পক্ষে মাঠে নামা ও সরকারি প্রভাব বিস্তারে লঙ্ঘন হয়েছে বলে সাংবাদিকদের অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের প্রধান নির্বাচনী সমন্বয়ক এটিএম কামাল। তবে এ ব্যাপারে এখনও তারা ইসিতে লিখিত অভিযোগ দেননি বলে জানান।

বিষয়টি জানতে চাইলে নির্বাচন অফিসার রফিকুল ইসলাম জানান, আমাদের কাছে কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি এখনও। দুটো অভিযোগ দিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। সেগুলো জেলা পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহফুজা আক্তার।