কুয়াশার চাদরে মোড়ানো শীতের সকাল। সেই সঙ্গে বাতাসে বেড়েছে শীতের মাত্রা। প্রকৃতির প্রতিকূলতা থেকে বাঁচতে উষ্ণতা ও আশ্রয়ের খোঁজে মাগুরার মহম্মদপুরের ঘোপ বাওড়ে এসেছে ঝাঁকেঝাঁকে অতিথি পাখি। এসব পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে উঠেছে বাওড় এলাকা। যেন পরিণত হয়েছে অতিথি পাখির অভয়ারণ্যে। পাখির কলরবে ভোরের কম্বল জড়ানো এখানকার বাসিন্দাদের ঘুম ভাঙছে। প্রতিদিনই অনেক দূর থেকে প্রকৃতিপ্রেমিরা এখানে ভিড় করছেন পাখি দেখতে। 

ষড়ঋতুর আবর্তে শীতের বারতা এলেই অতিথি পাখির আগমন ঘটে এখানে। এ সময়টাতে মেরু অঞ্চল, ইউরোপ, সাইবেরিয়া, এশিয়ার কিছু অঞ্চল ও হিমালয়ের আশপাশের এলাকায় মাত্রাতিরিক্ত বরফ পড়ার কারণে তুলনামূলক কম শীতের বাংলাদেশে খাদ্য ও নিরাপদ আশ্রয়ের আশায় চলে আসে অতিথি পাখিরা। 

এ সময় বাংলাদেশের হাওর-বাওড়, খাল-বিল মুখরিত হয়ে ওঠে পাখির কলকাকলিতে। তবে এ পরিযায়ী পাখিরা দেশের সব জায়গায় আসে না। খাদ্যের যেমন প্রাচুর্য রয়েছে, তেমনি জলাশয় ও বিশালাকার জলাভূমি এলাকাগুলো বেছে নেয় এরা। 

ঘোপ বাওড়ের বাসিন্দ আরজ খান বলেন, শীতের শুরুতেই বাওড়ে অতিথি পাখির দেখা মেলে। অতিথি পাখির ঝাঁকবেঁধে বিচিত্র স্বরে ডাকতে ডাকতে উড়ে চলার সুন্দরতম দৃশ্য আমাদের মুগ্ধ করে তোলে।