চট্টগ্রামে ফার্নিচারের গুদামে আগুনে পুড়ে রনি ও শাহাদাত নামে দুই কর্মচারি নিহত হলেও পৃথকভাবে দুই জনকে শনাক্ত করা যায়নি। তাই দুটি লাশের ডিএনএ টেস্ট করে মরদেহ দুটি শনাক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার লাশ দুটি পুলিশের তত্বাবধানে আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলামকে দিয়ে দাফনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এর আগে সোমবার বিকেল চারটার দিকে নগরের পাহাড়তলী থানার কর্নেল জোন্স সড়কের পিটুপি কারখানায় আগুনের ঘটনা ঘটে। প্রায় দেড় ঘণ্টা পর সাড়ে পাঁচটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা।

পাহাড়তলী থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আগুনে পুড়ে যাওয়া দুটি লাশের পরিচয় নিশ্চিত হয়েছি। তবে কোন লাশটি রনির আর কোন লাশটি শাহাদাতের তা পৃথক করা যাচ্ছে না। তাই ডিএনএ টেস্ট করে সনাক্তের ব্যবস্থা করা হয়েছে। উভয় পরিবারের সম্মতিতে তাদের সহযোগিতা আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলাম লাশ দুটি দাফনের ব্যবস্থা করছে। আজ না হলে কাল বুধবারের মধ্যে দাফনের কাজ শেষ করা হবে।

ফায়ার সার্ভিসের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ফারুক হোসেন সিকদার বলেন, আগুনে ক্ষয়ক্ষতি নির্ধারণ করা যায়নি। কিভাবে আগুন লেগেছে তাও সুনিদিষ্টভাবে চিহ্নিত করা যায়নি। তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে। তারা রিপোর্ট দেওয়ার পরই বিস্তারিত জানা যাবে।

সোমবার বিকেল ৩টা ৫০মিনিটে দিকে আগুন লাগার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। কারখানায় দাহ্য পদার্থ থাকায় আগুন তাৎক্ষণিক পুরো গুদামে ছড়িয়ে পড়ে। ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটের ১৪টি গাড়ি আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। দেড়ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। আগুন নেভানোর পর রাত সোয়া আটটা পর্যন্ত উদ্ধার কাজ চলে। ফার্নিচার তৈরির প্রতিষ্ঠানটি টিনের ছাউনি ও স্টিলের অবকাঠামোর উপর দ্বিতল বিশিষ্ট। এর আয়তন প্রায় পাঁচ হাজার বর্গফুটের। সামনে কারখানা, পেছনে গুদাম।

পিটুপি'র হেড অব ব্র্যান্ড আরিয়ান ইসলাম সমকালকে জানান, কয়েকদিন আগে চীন থেকে একটি শিপমেন্টে দুই থেকে তিন কোটি টাকার পণ্য এনে গুদামে রাখা হয়েছে দাবি করে আগুনে কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি।