শ্রীপুরে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় দুই বন্ধু মিলে পোশাক কারখানার এক শ্রমিককে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আল আমীন ও সুমন মিয়া নামের দুই বন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হলে বিচারক তাদের জেল হাজতে পাঠায়। 

এর আগে সোমবার রাতে ওই নারী নেত্রকোনার সিঙ্গারগালা গ্রামের মৃত আবদুল গণির ছেলে সুমন এবং ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ থানার বক্তগোড়া গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে আল আমীনকে আসামি করে মামলাটি করেন। পরে ওই রাতেই গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার আবদার গ্রাম থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।  

ধর্ষণের শিকার ওই নারী জানান, আবদার এলাকায় তিনি বাবার সঙ্গে ভাড়া বাসায় থেকে একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। সুমনও একই এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। বেশ কিছুদিন ধরেই সুমন তাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। এতে রাজি না হওয়ায় তার ওপর ক্ষুব্ধ হয়। রোববার রাতে বাসার পাশের একটি দোকানে জিনিসপত্র কেনার জন্য বের হন তিনি। এ সময় সুমন ও তার বন্ধু আল আমীন কৌশলে তাকে বাসায় নিয়ে যায়। পরে পালাক্রমে দু’জনই তাকে ধর্ষণ করে। ঘটনার পর দিন সোমবার রাতে তিনি ওই দু’জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ তাদেরকে গ্রেপ্তার করে। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) মাহফুজ ইমতিয়াজ ভূঁইয়া জানান, মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেপ্তার হওয়া সুমন ও আল আমীনকে আদালতে পাঠানো হলে বিচারক দু’জনকেই জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।