নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, 'নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে স্থানীয় প্রশাসন সরকারি দলের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছে। নির্বাচন কমিশন শুরু থেকেই আমাকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড দেয়নি। বার বার আমার অভিযোগের পরও সরকারি দলের এমপি ও বড় বড় নেতাকে এনে উস্কানিমূলক ও ভয়ভীতি ছড়ানোর মতো কথাবার্তা বলা হচ্ছে।' 

তিনি বলেন, 'সরকারি দলের এক নেতা বলে গেছেন, তৈমূরকে মাঠে নামতে দেওয়া হবে না। আরেকজন সম্মানিত নেতা বলেছেন, তৈমূর ঘুঘু দেখেছে ফাঁদ দেখেনি। তিনি ২৪ ঘণ্টায় আমাকে রেজাল্ট দেখানোর কথা বলেছেন। এ ঘোষণার ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই আমার নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সিদ্ধিরগঞ্জের প্রধান সমন্বয়ক জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।'

তৈমূর তার প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে মঙ্গলবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, 'রবির বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট থাকলে পুলিশ এতদিন তাকে গ্রেপ্তার করেনি কেন। ঘুঘু দেখানোর জন্য নানক সাহেব যখন বললেন তারপর থেকেই কেন আপনারা আমাকে ফাঁদ দেখানো শুরু করেছেন। এখনও আমার অনেক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।'

তৈমূর বলেন, 'তারা যে ঘুঘু দেখানোর কথা বলেছেন, সেই ঘুঘু যদি দেখানো হয় তাহলে আমি মনে করি এখানে সবচেয়ে বেশি ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। হয়তো তিনি বিষয়টা জানেন না, বা তার নজরের বাইরে গিয়ে এ ধরনের জুলুম অত্যাচার করা হচ্ছে। আমি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি অবশ্যই আপনি নারায়ণগঞ্জের জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটাবেন।'

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে বন্দরের ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, 'আমাদের জীবনটাই ঝামেলার। এই ঝামেলা মোকাবিলা করেই আমি নির্বাচন করব। জনগণ আমাকে নিয়ে নির্বাচনে থাকবে।'

পুলিশি হয়রানির অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের একটা অঙ্গ সংগঠনের কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। তাদের বাড়িতে গিয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করতে বলে আসা হয়েছে। এরকম সব জায়গায় পুলিশ যাচ্ছে ও নৌকার পক্ষে কাজ করতে শাসাচ্ছে।