চট্টগ্রামে হাইকোর্টের একটি সার্কিট বেঞ্চ স্থাপনে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে কথা হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যেই একটি ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। আর চট্টগ্রামে জেলা প্রশাসনের সঙ্গে ভবন ও জায়গা নিয়ে যে বিরোধ চলছে- তাও খুব শিগগির সমাধান হবে বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

শনিবার চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির আয়োজনে ‘আইনজীবী মিলন মেলা-২০২১’ এর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা থেকে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত থেকে তিনি বক্তব্য রাখেন। 

আনিসুল হক বলেন, আমি কারো নাম নিয়ে বলছি না, আইনজীবীদের সঙ্গে ভবন ও জায়গা নিয়ে যে বিরোধ হয়েছে তা দ্রুততম সময়ের মধ্যে সমাধান হবে। আইনজীবীরা এ ঘটনায় শান্ত থাকায় তাদের ধন্যবাদ জানাই। আপনাদের দীর্ঘদিনের দাবি চট্টগ্রামে একটি হাইকোর্ট বেঞ্চ করার। আমি এ বিষয়টি নিয়ে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি আমাকে আশ্বাস দিয়েছেন। এ বছরে চট্টগ্রামে হাইকোর্টের একটি সার্কিট বেঞ্চ হবে। সরকার দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় বদ্ধপরিকর।

মিলন মেলায় বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, আইন সচিব গোলাম সারওয়ার, অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস কাজল, চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমান, চট্টগ্রাম চিফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রবিউল আলোম, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ এনামুল হক, সাধারণ সম্পাদক এএইচএম জিয়াউদ্দিন প্রমুখ।

আইনমন্ত্রী আরও বলেন, দেশে আইন কর্মকর্তাদের সম্মানী সন্তোষজনক করার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। বিভাগীয় শহর ও জেলা শহরের আইন কর্মকর্তা তথা পিপি, অতিরিক্ত পিপি, সহকারী পিপিদের সম্মানী ৫০ হাজার ৪০ হাজার ও ২৫ হাজার করার প্রক্রিয়া চলছে। খুব শিগগির এ বিষয়ে সুখবর পাবেন আইন কর্মকর্তারা।