‘সবাইকে নিয়ে কাজ করা যাবে না। তবে তৈমূর কাকা যে ইশতেহার দিয়েছেন, সেটি ফলো করব।’ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে হ্যাটট্রিক জয়ের পর রোববার রাতে নিজ বাড়িতে গণমাধ্যমের কাছে এভাবেই নিজের প্রতিক্রিয়া জানান নৌকার প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী। 

রাতে জয় নিশ্চিত হওয়ার পর আইভী নিজ বাড়িতে উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, আইভী জনতার। সব সময় জনগণের ছিল। আজীবন আইভী জনগণের হয়েই থাকতে চায়। আজীবন আইভী আপনাদের। নৌকা-আইভী এখানে এক ও অদ্বিতীয়।

এর আগে রোববার সকালে ভোট দিয়ে উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন আইভী।

নির্বাচনের মাঠে কোনো ভয় বা শঙ্কা ছিল কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে আইভী বলেন, 'নির্বাচনে কোনো ভয় বা শঙ্কা ছিল না। তবে নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে আমার ওভার কনফিডেন্সকে অনেকে ভিন্নভাবে দেখেছেন। আমি কাজ করেছি, তাই জানতাম জনগণ আমাকে বিমুখ করবে না।'

আইভী বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী আমাকে যে মুখ করে নৌকা তুলে দিয়েছিলেন, আমি সেই প্রত্যাশা পূরণ করতে পেরেছি। আমি আওয়ামী লীগের হয়েই থাকতে চাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দলেই থাকতে চাই। আমি জয় বাংলাই বলব।'

গত নির্বাচনের চেয়ে ভোট কম পাওয়া নিয়ে কিছুটা অতৃপ্ততার কথা বলেন নারায়ণগঞ্জ নগরের এই অভিভাবক। তিনি বলেন, গতবারের চেয়ে ভোট কম পেয়েছি। তবে ভোটও কম কাস্ট হয়েছে। আরও বেশি কাস্ট হলে আরও বড় ব্যবধানে জিততে পারতাম।

উপস্থিত সাংবাদিকরা জানতে চান, এবার বিজয়ের পর তার প্রধান কাজ হবে কোনটি- এর জবাবে আইভী বলেন, আমার প্রধান কাজ হবে প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর কদমরসুল ব্রিজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করানো। নগরের বর্জ্য ব্যবস্থাপনার স্থায়ী সমাধান এবং নগরবাসীর জন্য সুপেয় পানির ব্যবস্থা করা।

এদিকে রোববার বিকেল ৪টায় ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার পরই আইভীর দেওভোগের বাড়িতে ভিড় করতে থাকেন নেতাকর্মী, সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ীরা। সন্ধ্যার পর ভোটের ফলে আইভী এগিয়ে যেতে থাকলে উপস্থিত নেতাকর্মীদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইতে শুরু করে।