নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় এক প্রবাসীর স্ত্রী ও তার কন্যা শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার বেলা ৩টার দিকে হাতিয়া পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের গুল্লাখালী গ্রামের একটি বাড়ির কাছ থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত দু’জন হলেন গুল্লাখালী গ্রামের ওমান প্রবাসী রবিয়ল হকের স্ত্রী লুৎফা বেগম (৪০) ও তার মেয়ে চাঁদনী (৭)। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে, তাদের হত্যা করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত লুৎফা বেগমের বড় মেয়ে নাদিয়া (২২) কয়েক দিন আগে নোয়াখালী থেকে হাতিয়ায় তার নানাবাড়ি বেড়াতে যান। সেখান থেকে মাকে দেখতে রোববার দুপুর ২টার দিকে বাড়িতে যান। তখন বাড়িতে কাউকে না দেখে খুঁজতে থাকেন তিনি। এ সময় ঘরের কিছুটা দূরে তার মা ও ছোট বোনের মরদেহ দেখতে পান। পরে পুলিশ এসে মরদেহ দুটি উদ্ধার করে।

হাতিয়া থানার ওসির দায়িত্বে থাকা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কাঞ্চন কান্তি দাস জানান, শিশু চাঁদনীর শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই। তবে তার মায়ের কোমরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এটি ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বিষয়টি পরিষ্কার হওয়া যাবে।