শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের অপসারণের দাবির সঙ্গে সংহতি জানাতে অস্বীকৃতি জানানোয় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ফিরিয়ে দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নেতাদের। 

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে যান শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. তুলসী কুমার দাস এবং সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. মস্তাবুর রহমান। 

এসময় শিক্ষার্থীরা দাবি জানান, উপাচারে্যর পদত্যাগের দাবির সঙ্গে শিক্ষকরা যেন সংহতি জানান। কিন্তু শিক্ষক সমিতির নেতারা তা জানাতে অস্বীকৃতি জানান। তখন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাদের ফিরিয়ে দেন।

শিক্ষার্থীদের একজন সমকালকে বলেন, ‘শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. তুলসী কুমার দাস এবং সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. মস্তাবুর রহমান আমাদের কাছে এসে কথা বলতে চান। তখন আমাদের মাঝ থেকে শিক্ষার্থীরা উনাদের কাছে জানতে চান, আমাদের এক দফার আন্দোলন উনারা সহমত পোষণ করেন কি-না। সহমত পোষণ না করলে আমরা কথা বলতে রাজি না। আমরা এই কথা বেশ কয়েকবার উনাদের বললে, উনারা কোনো উত্তর দেননি। পরে উনারা এখান থেকে চলে যায়।’

এদিকে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে সকাল ১০টা থেকে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছে।

রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া আইআইসসিটি ভবনের সামনে সংঘর্ষের ঘটনায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের নাম উল্লেখ না করে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

অভিযোগ রয়েছে, তিন দফা দাবিতে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হামলা করেছে। ওই সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা সেখানে উপস্থিত থাকলেও সংঘাত নিয়ন্ত্রণে কোনো ভূমিকা তারা নেননি।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বলছেন, এই মামলা প্রত্যাহার করা না হলে তারা আরও কঠোর কর্মসূচি দেবেন।

ক্যাম্পাসে সংঘাত ও সংঘর্ষের ঘটনায় গত ১৬ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করে।