খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার একটি বিলে নিজেদের জমিতে ধানের বীজতলা তৈরি করেছিল অষ্টম শ্রেণির ছাত্র কৌশিক দাস। স্থানীয় সুদেব দাস গরু ও ছাগল দিয়ে নষ্ট করেন সেই বীজতলা। এর প্রতিবাদ করলে শিশু কৌশিককে প্রথমে মারধর করা হয়। এক পর্যায়ে পাশের মাছের ঘেরের নরম মাটিতে অর্ধেক পুঁতে ফেলা হয়। পরে তাকে উদ্ধার করেন পাশের মাছের ঘেরের শ্রমিকরা।

উপজেলার শোভনা গ্রামের বিলে বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহত কৌশিককে পরে ডুমুরিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

শিশু কৌশিক ও তার বাবা শ্রীকান্ত দাস জানান, দুপুরে সুদেব দাস তার গরু ও ছাগল দিয়ে কৌশিকদের বীজতলা নষ্ট করতে থাকেন। প্রতিবাদ করলে সুদেব, তার বোন পূর্ণিমা দাস ও তার মেয়ে বৃষ্টি দাস কৌশিককে প্রথমে মারধর করেন। এক পর্যায়ে তাকে পাশের একটি চিংড়ি ঘেরের নরম মাটিতে প্রায় নাভি পর্যন্ত পুঁতে ফেলা হয়। ওই সময় কৌশিকের চিৎকারে পাশের চিংড়ি ঘেরের শ্রমিকরা গিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। তবে কৌশলে সুদেবসহ অন্যরা পালিয়ে যান।

ডুমুরিয়া থানার ওসি মো. ওবায়দুর রহমান জানান, মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।