মাদারীপুরের শিবচরে নবম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

শনিবার সকালে উপজেলার সন্ন্যাসীরচরের মাদবরকান্দি এলাকায় মেয়েটির ওপর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়। এ ঘটনায় মামলার পর মূল আসামি নাহিদ শেখকে রোববার সকালে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও ভুক্তভোগীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ওই ছাত্রীর বাড়ি উপজেলার বন্দরখোলা ইউনিয়নের মফিতুল্লাহ হাওলাদারকান্দি গ্রামে। রাজারচর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সে। শনিবার সকালে মেয়েটি বাড়ি থেকে বাজারের দিকে যাচ্ছিল। পথে স্থানীয় বখাটে নাহিদ শেখ ও আল আমিন হাওলাদার একটি মোটরসাইকেলে করে এসে তার পথ আটকায়। এরপর মেয়েটিকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে জোর করে মোটরসাইকেলে তুলে নেয়। 

মেয়েটিকে পার্শ্ববর্তী সন্ন্যাসীরচরের মাদবরকান্দির একটি কলাবাগানে নিয়ে যায় তারা। সেখানে তাকে ‘ধর্ষণ’ করে নাহিদ। এ সময় মেয়েটির চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে বখাটেরা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মেয়েটির ভাই বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। 

নাহিদ বন্দরখোলা ইউনিয়নের রাজারচর মোল্লাকান্দি গ্রামের কায়ুম শেখের ছেলে। অপর আসামি আল আমিন পলাতক। সে একই গ্রামের তারা মিয়া হাওলাদারের ছেলে।

শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন বলেন, ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।