শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) সাবেক পাঁচ শিক্ষার্থীকে উপাচার্য বিরোধী আন্দোলনে অর্থ সহায়তার অভিযোগে আটক করে সিলেট পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। মঙ্গলবার সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. নিশারুল আরিফ সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, আটক পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

পাঁচজনের মধ্যে দুইজনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন, শাবির আর্কিটেকচার বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী রেজা নূর মুঈন ও সিএসই বিভাগের হাবিবুর রহমান। তাৎক্ষণিকভাবে বাকি তিনজনের পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি।

শিক্ষার্থীদের শাবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবির আন্দোলনে অর্থ সহায়তার অভিযোগে সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের আটক করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তাদের পরিবার ও বন্ধুদের অভিযোগ, উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে শাবিপ্রবির চলমান আন্দোলনে কিছু অর্থ সহায়তা করায় তাদের ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

সিআইডির একটি সূত্র জানিয়েছে, অনেক সময় পুলিশের অন্যান্য ইউনিট সিআইডির সহায়তা চায়। এটা আসলে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অভিযান। সিআইডি কেবল তাদের সহায়তা করেছে।

এ বিষয়ে শাবিপ্রবির সাবেক শিক্ষার্থী শাহ রাজী সিদ্দিক সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আমি আর হাবিবুর গত প্রায় আড়াই বছর ধরে একসঙ্গে থাকি। তাকে সিআইডির লোকেরা গতরাতে উত্তরা ৭ নম্বর সেক্টর এলাকা থেকে তুলে নিয়ে গেছেন। অথচ সাবেক ছাত্র হিসেবে মাত্র এক হাজার টাকা আন্দোলনকারীদের দিয়েছিল।

শাহ রাজী সিদ্দিক বলেন, আমরা একটি সূত্র থেকে খবর পেয়েছি, জালালাবাদ থানায় এর আগে ২০০ জনের বিরুদ্ধে যে মামলা হয়েছে, সেটয় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হতে পারে।

তিনি বলেন, হাবিবুরের পারিবারিক অবস্থা ভালো নয়। মা-বাবা টাঙ্গাইলে থাকেন। গতকালই তার জার্মানিতে যাওয়ার ভিসা হয়েছে। সেখানকার একটি সফটওয়্যার কোম্পানিতে চাকরি পেয়েছে সে। অন্যদিকে,রেজার সন্তান খুবই ছোট। তাদের এভাবে তুলে নিয়ে যাওয়ার কোনো কারণ খুঁজে পাচ্ছেন না তিনি।

তবে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজাদ রহমান বলেন, সিআইডি কাউকে গ্রেপ্তার করেনি।

>> আন্দোলনকারীদের ‘টাকা পাঠানোয়’ শাবির সাবেক ২ শিক্ষার্থীকে আটকের অভিযোগ