র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) কীভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করবে, সেটা যুক্তরাষ্ট্র শিখিয়েছে। কার্যক্রমে সমস্যা থাকলে যুক্তরাষ্ট্র সহযোগিতা করতে পারে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, ‘এরা (র‌্যাব) কীভাবে অ্যাকশন নেবে, এগুলো আমেরিকানরা শিখিয়েছে। তাদের এই রুলস অব এনগেজমেন্টে যদি অসুবিধা থাকে, আমরা আমেরিকানদের বলব, তোমরা এদের ফ্রেশ ট্রেনিং দাও, যাতে কোনো ধরনের ব্যত্যয় না ঘটে।

মঙ্গলবার সকালে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের ২১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিক উপলক্ষে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে এসব কথা বলেন আব্দুল মোমেন।

র‌্যাবের কার্যক্রম নিয়ে  আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনের সমালোচনা প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান হলেই যে খুব ভালো প্রতিষ্ঠান, তা নয়। একটি প্রতিষ্ঠান বলেছে, বাংলাদেশে র্যাব বহু লোক মেরে ফেলেছে, অমুক-তমুক। তারা একসময় বলেছিল, ইরাকে নিষিদ্ধ অস্ত্র রয়েছে। এটা বলার পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র সরকার মনে করেছে, সত্যি সত্যি আছে…পরের ঘটনা আপনারা জানেন।

তিনি বলেন, আমি যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে বলব, তারা আগের কথা স্মরণ করুক। একটি প্রতিষ্ঠান কীভাবে তাদের ভুল পথে নিয়েছে, যার কারণে তাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে দুঃখ প্রকাশ করতে হয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, র‌্যাব অত্যন্ত পারদর্শীভাবে ও সততার সঙ্গে কাজ করছে। এ জন্য বাংলাদেশে সবার কাছে র‌্যাব গ্রহণযোগ্য। আমাদেরও কাজ করার আছে। যদি কোথাও আইনের ব্যত্যয় হয়, অবশ্যই আমরা সেখানে অ্যাকশন নেব। ইতিমধ্যে দু-একটা কেসে র‌্যাব এবিউজড করেছিল। তাদের শাস্তি হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের ঘটনা আপনারা জানেন।

বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে সম্প্রতি র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গত ১০ ডিসেম্বর এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।