বরিশাল নগরীর ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইছাকাঠি খ্রিষ্টান কলোনিতে ছুরিকাঘাতে দীপু হালদার (৪৫) নামে শ্রমিক ফ্রন্টের এক নেতা নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাতে কলোনির মধ্যে একটি চায়ের দোকানের সামনে এ ঘটনা ঘটে। ছুরিকাঘাতকারী মাদকাসক্ত কুডু মিস্ত্রিকে (৪৫) স্থানীয় জনতা তাৎক্ষণিক আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। বিমানবন্দর থানার ওসি কমলেশ চন্দ্র হালদার এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিহত দীপু হালদার বীর মুক্তিযোদ্ধা রমেন্দ্র নাথ হালদারের ছেলে। বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) জেলা শাখার নেতারা জানিয়েছেন, দীপু শ্রমিক ফ্রন্টের জেলা শাখার সদস্য ও ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংগঠক ছিলেন।

২৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদ আহমেদ জানান, দীপু ও কুডু দু'জনই ইছাকাঠি খ্রিষ্টান কলোনির বাসিন্দা। দু'জনই পেশায় কাঠমিস্ত্রি। মাদক সংক্রান্ত বিরোধের জেরে কলোনির মধ্যে দীপুকে ছুরিকাঘাত করে কুডু মিস্ত্রি

ওসি কমলেশ হালদার শুক্রবার বিকেলে জানান, জিজ্ঞাসাবাদে আটক কুডু পুলিশকে জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে তাকে দীপু মারধর করেছিল। এর প্রতিশোধ নিতে সন্ধ্যার পর সে দীপুকে পেয়ে ছুরিকাঘাত করে। ওসি জানান, জনতার হাতে আটকের পর গণধোলাইয়ে কুডু অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে থানায় রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। নিহত দীপুর সৎকারের পর তার পরিবার থেকে মামলা দায়ের করা হবে।

এদিকে বাসদ বরিশাল জেলা শাখার আহ্বায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন ও সদস্য সচিব ডা. মনিষা চক্রবর্তী এক বিবৃতিতে দীপুকে হত্যার নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, তিনি প্রগতিশীল মানসিকতার একজন সমাজ সচেতন মানুষ ছিলেন। মাদকাসক্ত কুডু মিস্ত্রির ছুরিকাঘাতে দীপু নিহত হয়েছে। তারা হত্যাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।