জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। শনিবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের দুর্গম যমুনা চর ৩ নম্বর ওয়ার্ডের নলসন্ধ্যা গ্রামে এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১৫ জন।

সংঘর্ষে নিহত ভোলা শেখ পার্শ্ববর্তী সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলার কাজল গ্রামের হারুনর রশিদের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, দেশে ষষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচনে সরিষাবাড়ীর পিংনা ইউনিয়নে ভোট হবে আগামীকাল ৩১ জানুয়ারি। ইউপির ৩ নম্বর ওয়ার্ডে সদস্য পদে নুরুল ইসলাম ফুটবল প্রতীকে এবং তার প্রতিদ্বন্দ্বী সুজাত আলী সুরু মোরগ প্রতীকে নির্বাচন করছেন। তবে নির্বাচনী প্রচার নিয়ে দু'পক্ষের মধ্যে শুরু থেকেই বিরোধ চলে আসছিল। সেই দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে শনিবার সকাল ১১টার দিকে পশ্চিম নলসন্ধ্যা চরে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে ঘটনাস্থলেই নুরুলের সমর্থক ভোলা শেখ নিহত হন।

মেম্বার প্রার্থী নুরুল অভিযোগ করেন, প্রতিদ্বন্দ্বী সুরুর লোকজন তাদের ওপর হামলা চালিয়ে ভোলা শেখকে হত্যা করেছে। এ ছাড়া তার ১০-১৫ সমর্থকও আহত হয়েছেন।

ভোলার স্ত্রী লাইলি বেগম জানান, সকালে নুরুল ইসলামের সমর্থকরা ভোট চাইতে বের হলে প্রতিপক্ষ সরুর লোকজন রুবেল ও হালিম নামে দু'জনকে ধরে নিয়ে যায়। তাদের উদ্ধারে ভোলা ঘটনাস্থলে গেলে সুরুর নেতৃত্বে রামদা দিয়ে কুপিয়ে তাকে হত্যা করা হয়।

তারাকান্দি তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ (পুলিশ পরিদর্শক) আব্দুল লতিফ জানান, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে। আহতদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। হত্যা ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ১০ জনকে আটক করা হয়েছে।