মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় এসিডে ঝলসে যাওয়া সেই পোশাককর্মী সাথী আক্তার মারা গেছেন। প্রায় দুই সপ্তাহ চিকিৎসাধীন থাকার পর মঙ্গলবার রাত ১২ টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান।

গত ২৯ জানুয়ারি সাবেক স্বামী নাঈমের ছোঁড়া এসিডে সাথীর সারা শরীর ঝলসে যায়। এ ঘটনায় সাথীর সাবেক স্বামীকে ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাটুরিয়া থানার ওসি আশরাফুল আলম। তিনি বলেন, এসিড মামলার সাথে এখন হত্যার মামলারও আসামি করা হবে নিহতের সাবেক স্বামী নাঈমকে।

গ্রেপ্তার নাঈমের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ঘটনার দিন রাতে সাথী আক্তার তার বাবার বাড়ির একটি ঘরে পরিবারের সদস্যদের সাথে ঘুমাচ্ছিলেন।  দ্বিতীয়বার সাবেক স্বামীকে বিয়ে করতে না চাওয়ায় এ সময় সাথীকে এসিড ছুড়ে মারেন নাঈম। এতে সাথীর মুখমণ্ডলসহ শরীর ঝলসে যায়। আহত হয় সাথীর মা জুলেখা ও বোন ইতি আক্তার। ওই দিন ঘরে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে সাথীকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন বলেও পুলিশের কাছে স্বীকার করেন নাঈম।

সাটুরিয়া থানার ওসি আশরাফুল আলম বলেন, সাথীর হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আসামিকে রিমান্ডে আনা হয়েছে। এ ঘটনার সাথে আরো কেউ জড়িত আছে কি না তা বের করা হবে।