ভুয়া কাবিননামায় স্বাক্ষর নিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন, পরে ওই বিয়ে অস্বীকার ও অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়ায় বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন এক তরুণী। গত ৫ ফেব্রুয়ারি কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের বাতারগ্রামে বিষপানের এ ঘটনা ঘটে। পরে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেপে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় গত বুধবার রাতে ওই তরুণী থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছেন।

নির্যাতিত ওই তরুণী অভিযোগে বলেন, সাত মাস আগে তাকে (কনে হিসেবে) দেখতে আসেন শৌলমারী ইউনিয়নের ফকিরপাড়া গ্রামের আবদুল বাতেনের ছেলে ফারুক হোসেন (২৬) ও তার পরিবারের লোকজন। ফারুক তাকে পছন্দ করলেও পছন্দ হয়নি তার (ফারুকের) পরিবারের লোকজনের। এরপর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন ফারুক। এক পর্যায়ে বিয়ের কথা বলে গোপনে 'একটি কাবিননামায়' স্বাক্ষর নেন তিনি। এরপর তার নিকট আত্মীয়ের বাড়িতে নিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করেন। এ সময় গোপনে মোবাইল ফোনে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ধারণ করে রাখেন ফারুক। দীর্ঘ সাত মাস পরেও আনুষ্ঠানিকভাবে বাড়িতে না তোলার কারণ জানতে চাইলে বিয়ের কথা অস্বীকার করেন ফারুক। এরপরও ওই তরুণী ফারুকের বাড়িতে উঠতে চাইলে ওই ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন তিনি। এতে গত ৫ ফেব্রুয়ারি বিকেলে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ওই তরুণী। পরে স্বজনরা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেপে ভর্তি করেন। অভিযুক্তকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান ওই তরুণী।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলম বিষপান করা অবস্থায় ওই তরুণীর হাসপাতালে ভর্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

রৌমারী থানার ওসি মোন্তাছের বিল্লাহ বলেন, ধর্ষণ মামলা গ্রহণের পর ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই তরুণীকে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।