শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদকে সবার কাছে দুঃখ প্রকাশের কথা বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শুক্রবার সন্ধ্যায় শাবি উপাচার্য কার্যালয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনার সময় উপাচার্যকে এ কথা বলেছেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম।

কোষাধ্যক্ষ বলেন, আলোচনায় মন্ত্রী বলেছেন, ১৬ জানুয়ারির এই ঘটনা কারও কাম্য ছিল না। উপাচার্য হিসেবে কিছু দায়িত্ব আপনার আছে। সেই অবস্থান থেকে আপনি দুঃখ প্রকাশ করবেন। বিশ্ববিদ্যালয় দিবসটি আগে যেভাবে পালন করা হত, সেভাবে সবাইকে নিয়ে পালন করতে হবে। এছাড়া উপাচার্য থাকবেন কি থাকবেন না তদন্ত সাপেক্ষে আচার্যের বিষয়। পাশাপাশি পদত্যাগের বিষয়ে সিদ্ধান্ত না দেওয়া পর্যন্ত উপাচার্যকে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক দায়িত্ব পালনের কথাও বলেন।

এদিকে মন্ত্রী সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে এসে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে কথা বলেন। উপাচার্যকে অপসারণের বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রথম শিক্ষার্থীদের দাবি নিয়ে তাদের বক্তব্য শুনেছি এবং সবটুকুই আমরা মহামান্য আচার্যকে জানাব। কারণ আইন অনুযায়ী উপাচার্য নিয়োগ এবং অপসারণ এগুলো পুরোপুরি আচার্যের এখতিয়ার। আপনাদের যে যুক্তি এবং বক্তব্য, আমরা তার কাছে পৌঁছে দেব ও অবগত করব এবং তিনি তার বিবেচনা প্রসূত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। আমরা চাই যত দ্রুত সম্ভব শাবিতে শিক্ষার সম্পূর্ণ একটা স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরে আসুক।

হল খোলার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, হল খোলার বিষয়ে প্রশাসনের সঙ্গে আলাপ করব। যেন দ্রুত শিক্ষার পরিবেশ ফিরে আসে। পরে মন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনে গিয়ে শিক্ষক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের সঙ্গে আলাপ করেন।

এদিকে মন্ত্রী শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রশংসা করে বলেন, আপনাদের আন্দোলনের প্রশংসা আবারও করছি। খুবই ভালো এবং অহিংস একটা আন্দোলন ছিল।

তিনি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে বলেন, শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘক্ষণ আলাপ হয়েছে। তারা আমাদের কাছে নানা বিষয়ে জানিয়েছেন এবং লিখিত কিছু দাবি বা প্রস্তাব উপস্থাপন করেছেন। যে দাবিগুলো করা হয়েছে, তা অত্যন্ত যৌক্তিক। অনেকগুলোর কাজ এমনিতেই শুরু হয়েছে। আর কিছু এই দাবির পরিপ্রেক্ষিতে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। কারণ আপনাদের দাবির অধিকাংশ শিক্ষার্থী এবং শিক্ষার মান উন্নয়ন ও শিক্ষার পরিবেশ উন্নয়ন সম্পর্কিত। আমাদের লক্ষ্যও তাই, যেন শিক্ষার্থীরা উপযুক্ত এবং সুন্দর পরিবেশে পড়াশোনা করতে পারে। শিক্ষার্থীদের প্রস্তাবের সঙ্গে আমরা নীতিগতভাবে একমত প্রকাশ করছি।

এদিকে মন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষার্থীদের আলোচনার সময় উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ গত ১৬ তারিখের থেকে ২৬ দিন পর পুলিশি নিরাপত্তায় উপাচার্য কার্যালয়ে আসেন।