নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) মেয়র হিসেবে তৃতীয় মেয়াদে দায়িত্ব নিয়েছেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। রোববার তিনি নগর ভবনে পৌঁছলে করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। পরে তিনি নবনির্মিত নগর ভবনের অষ্টম তলায় মেয়রের কক্ষে বসেন। এর আগে নির্বাচনের জন্য গত বছরের ১৪ ডিসেম্বর তিনি মেয়রের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ওই সময় মেয়রের কার্যালয়টি পুরোনো ভবনের দ্বিতীয় তলায় ছিল।

এ দিন সকালে আইভী নগরের দেওভোগের বাসা থেকে বের হয়ে মাসদাইর কেন্দ্রীয় কবরস্থানে বাবা-মায়ের কবর জিয়ারত করেন। সেখান থেকে দায়িত্ব নিতে নগর ভবনে যান।

আবার মেয়রের দায়িত্ব নেওয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আইভী। তিনি বলেন, আগামী পাঁচ বছর সাধারণ মানুষের চাহিদা প্রাধান্য দিয়েই কাজ করব। কাজের জন্য জনগণের সঙ্গে আপোস করব, কিন্তু সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজদের সঙ্গে কোনো আপোস নয়। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অবস্থান প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, আমার অবস্থান অতীতে যে রকম ছিল, এখনও সে রকমই থাকবে। কোনো ধরনের আপোসের মনোভাব নিয়ে এখানে আসি নাই।

মেয়র বলেন, এবারও অতীতের মতো সবকিছুর ঊর্ধ্বে উঠে এই সিটি করপোরেশনে কাজ করব। আমার পরিষদকে আহ্বান জানাব, আমরা মানুষের কল্যাণে কাজ করব। এখানে কোনো দলাদলি, ধান্দাবাজি, চাঁদাবাজি হতে পারবে না। ১৮ বছর যেভাবে কাজ করেছি, সেভাবেই এখানে কাজ করব।

তিনি বলেন, চলমান কাজগুলো আমরা ত্বরিত গতিতে শেষ করার চেষ্টা করব। মেগা প্রকল্পের মধ্যে কদম রসূল ব্রিজকে প্রধান্য দেব। জালকুঁড়িতে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পকে প্রাধান্য দিয়ে আমাদের যে ছয়টি মেগা প্রকল্প আছে, সেগুলো শেষ করে প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে উদ্বোধন করানোর ব্যবস্থা করব। বাকি কাজগুলো চলমান থাকবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আবুল আমিন, নাসিকের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর আফসানা আফরোজ হাসান বিভা, অসিত বরণ বিশ্বাস, রুহুল আমিন, মো. সামসুজ্জোহা, শাওন অংকন, আবুল কাউসার আশা, অহিদুল ইসলাম ছক্কু, শারমিন হাবীব বিন্নি, শিউলী নওশাদ, আনোয়ার ইসলাম ও মো. শাহেনশাহ।