নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দু'পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে নারীসহ উভয়পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার মধ্যরাত পর্যন্ত উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের গহরদী এলাকায় এই সংঘর্ষের সময় বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়। এতে গোটা এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ওই ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে গহরদী গ্রামের ফারুক হোসেন বিজয়ী আর দেওয়ান বাড়ির স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী ইয়াকুব মিয়া পরাজিত হন। এরপর থেকে উভয়পক্ষের লোকজনের মধ্যে বেশ কয়েকবার ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার রাতে এ নিয়ে একটি সালিশ বৈঠক বসার কথা ছিল।

তবে দেওয়ান বাড়ির লোকজন বৈঠক বয়কট করে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মনির শিকারীর বাড়িতে হামলা চালায়। পরে তার লোকজনও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পাল্টা হামলা চালালে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষের সময় ইটপাটকেল নিক্ষেপসহ ককটেল বিস্ম্ফোরণ ঘটিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এ ঘটনায় পুলিশ চারজনকে আটক করলেও পরে মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়। সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে সেলিম, এমদাদুল, হযরত আলী ও ইয়াছিনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেপে ভর্তি করা হয়েছে।

আড়াইহাজার থানার ওসি আনিচুর রহমান মোল্লা জানান, পূর্বশত্রুতার জেরে দু'পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া ও সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।