মুন্সিগঞ্জ সদর ও টঙ্গীবাড়ি উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিশু মারা গেছে। বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে দুজনই বাইসাইকেল চালানোর সময় ট্রাক চাপা পড়ে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, বিকেলে সদর উপজেলার কাঁঠালতলার সড়কে আপন নামের ১০ বছর বয়সী এক শিশু সাইকেল চালাচ্ছিল। এই সময় একটি ট্রাক পেছন দিক থেকে এসে তাকে চাপা দেয়। পরে পরিবারের লোকজন আপনকে উদ্ধার করে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সদর থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক জানান, আপনের বাড়ি পাশের বনিক্যপাড়া গ্রামে। স্থানীয় আল আমিন হোসনের একমাত্র সন্তান আপন স্থানীয় ভট্টাচার্যের বাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র। একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে তার মা আমেনা বেগমের আহাজারিতে হাসপতালে উপস্থিত লোকজন শোকাতুর হয়ে পড়েন।

এদিকে দুর্ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা মুক্তারপুর-মাওয়া সড়কে কিছু সময় যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। পরে সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস ও মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ফয়সাল বিপ্লব গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন এবং নিহতের পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা দেন।

ওসি আবু বকর সিদ্দিক আরও জানান, আপনের মরদেহ উদ্ধারের পর মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ট্রাকটি আটক করা যায়নি। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এছাড়া টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আব্দুল্লাহপুর চৌরাস্তায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয় শিশু ইমাম হোসেন (৭)। ইমাম হোসেন টঙ্গীবাড়ির আব্দুল্লাহপুর গ্রামের শফিক মিয়ার ছেলে।

টঙ্গীবাড়ি থানার ওসি মোল্লা আলী সোয়েব জানান, শিশুটি আব্দুল্লাহপুর বাজার থেকে চৌরাস্তার সড়কে সাইকেল চালানোর সময় বালু ভরতি একটি ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলে শিশুটির মৃত্যু হয়।

তিনি আরও জানান, দুর্ঘটনার পর উত্তেজিত লোকজন ট্রাকটি ভাঙচুর করে এবং ট্রাক চালককে ধরে পুলিশে দিয়েছে। একপর্যায়ে ট্রাকটিতে আগুন দেওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ এসে রক্ষা করে।