ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের নারী ওয়ার্ডে ভর্তি এক রোগীর স্বামীকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় পাঁচজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ছাড়া এই ঘটনায় পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে সিভিল সার্জন অফিস।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে কোতোয়ালি থানায় মামলাটি দায়ের করেন আহত রাসেলের স্ত্রী হীরা বেগম। মামলায় ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের নার্স ইলা সিকদার, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি দেবাশীষ নয়ন ও নার্স সুপারভাইজার জহুরা বেগমের নামে এবং অজ্ঞাত আরও দুই ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক তারা।

ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম এ জলিল জানান, আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

এদিকে হামলার ঘটনায় পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. ছিদ্দীকুর রহমান। তিনি জানান, জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. মাসুদ আহম্মেদ আব্দুল্লাহকে সভাপতি ও ডেপুটি সিভিল সার্জন বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে সদস্য সচিব করা হয়েছে। এ ছাড়া কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন উপ-সেবা তত্ত্বাবধায়ক মর্জিনা বেগম, জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. গনেশ আগরওয়ালা ও সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ফাতেমা করিম। আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রাসেলকে রাতেই উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই রাসেল চিকিৎসাধীন।

জানা যায়, শহরের টেপাখোলা বৃন্দাবনের মোড় এলাকার বাসিন্দা রাসেল তার স্ত্রী হীরাকে নিয়ে তিন দিন ধরে ভর্তি আছেন ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের নারী ওয়ার্ডে। সেখানে হীরাকে চিকিৎসক রক্ত পরীক্ষার নির্দেশনা দেন। রাতে জেনারেল হাসপাতালের প্যাথলজি ল্যাব বন্ধ থাকায় বাইরের বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে পরীক্ষা করানোর জন্য নার্স ইলা সিকদারকে সিরিঞ্জে রক্ত টেনে দিতে অনুরোধ করেন রাসেল। কিন্তু নার্স রক্ত টেনে দেওয়া তার দায়িত্ব না জানালে দু'জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে নার্স ইলা সিকদার নার্স সুপারভাইজারের কাছে রাসেলের নামে নালিশ জানান, একই সঙ্গে শহরের কয়েকজনকে ফোন করে ডেকে আনেন। রাসেল নার্স সুপারভাইজারের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে বের হওয়ার পর পরই বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বাইরে থেকে আসা কয়েকজন ব্যক্তি রাসেলকে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে চলে যায়।