চট্টগ্রামের রাউজানে ছুরিকাঘাতে প্রেমিকাকে হত্যার পর প্রেমিকের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। রোববার রাত ৮টার দিকে উপজেলার পাহাড়তলী ইউনিয়নের মহামুনি বড়ুয়া পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।  

পুলিশ জানায়, আত্মহত্যা করা যুবকের নাম জয় বড়ুয়া (২৬)। তিনি মহামুনি বড়ুয়া পাড়ার বাসিন্দা নিলেন্দু বড়ুয়া নিলুর ছেলে। জয় একটি চায়ের দোকানের কর্মচারী ছিলেন। এছাড়া খুন হওয়া তরুণীর নাম অন্বেষা চৌধুরী ওরফে আশা (২০)। তিনি পাহাড়তলী ইউনিয়নের উদয়ন চৌধুরী বাড়ি এলাকার রনজিত চৌধুরী বাবলুর মেয়ে।

পুলিশ সূত্র জানায়, জয় ও অন্বেষার প্রেমের সম্পর্ক দীর্ঘ ১০ বছরের। তবে চায়ের দোকানের কর্মচারী হওয়ায় জয়ের সঙ্গে বিয়ে দিতে রাজি ছিল না মেয়েটির পরিবার। সম্প্রতি ফ্রান্স থেকে আসা এক যুবকের সঙ্গে অন্বেষার বিয়ে ঠিক করে পরিবার। আগামী ১০ মার্চ বিয়ের দিনক্ষণও ঠিক হয়। সেই বিয়েতে একপর্যায়ে রাজিও হয় অন্বেষা। বিষয়টি জেনে ক্ষুব্ধ হন জয়। পরিকল্পনা করেন অন্বেষাকে মেরে নিজেও মরে যাওয়ার।

পুলিশ সূত্রে আরও জানা যায়, ঘটনার দিন কৌশলে অন্বেষাকে ডেকে আনে জয়। এরপর তাকে পার্শ্ববর্তী একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে অন্বেষাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে জয়। পরে অন্বেষার মৃত্যু নিশ্চিত করে নিজের শার্ট ফ্যানের সঙ্গে বেঁধে ঝুলে আত্মহত্যা করেন জয়।

এ বিষয়ে অন্বেষা চৌধুরী পিতা বাবলু বড়ুয়া বলেন, কিছুদিন আগেই আমার মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়েছিল। আগামী মার্চ মাসের ১০ তারিখ অন্বেষা বিয়ের অনুষ্ঠানে হওয়ার কথা ছিল। বিয়ের বাজারও করা হয়েছে।

এ বিষয়ে রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবদুল্লাহ আল হারুন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে আমরা মরদেহ উদ্ধার করি। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।