ভবিষ্যতে সংগঠনের স্বার্থ পরিপন্থী কার্যক্রম এবং সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গ না করার শর্তে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার বারদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান বাবুল ওরফে লায়ন বাবুলকে ক্ষমা প্রদর্শন করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। 

মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদলের স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে লায়ন বাবুলকে এ ক্ষমা প্রদর্শন করে জেলা আওয়ামী লীগ। রোববার চিঠির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই। 

সোনারগাঁ উপজেলা বারদী ইউনিয়নের এক ধর্মীয় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা সম্পর্কে মনগড়া বক্তব্যের অভিযোগে সংগঠনের গঠনতন্ত্রের ৪৭(ক) ধারা অনুযায়ী লায়ন বাবুলকে শোকজ করে আওয়ামী লীগ।

পরে বাবুল বক্তব্য প্রত্যাহার করে ‘অনুতপ্ত হয়ে’ নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন। ভবিষ্যতে সংগঠনের গঠনতন্ত্র, নীতি ও আদর্শ পরিপন্থী কোন কার্যকলাপে সম্পৃক্ত হবেন না মর্মে লিখিত অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। 

পরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক (ঢাকা বিভাগ) মির্জা আজমের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ বাবুলকে ক্ষমা করে। পরে তাকে সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগে স্বপদে বহাল রাখার নির্দেশনা দেন।ভবিষ্যতে সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত হলে, তা ক্ষমার অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে নির্দেশনা দেওয়া হয়। 

এর আগে এক সভায় মাহবুবুর রহমান বাবুল বলেছিলেন, বারদী এলাকায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকেও আসতে হলে আমার অনুমতি নিতে হবে। 

বাবুলের এমন মন্তব্যে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এসময় লায়ন মাহবুবকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবিও জানান জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা।