রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে একসঙ্গে চার নবজাতকের জন্ম দিয়েছেন আদুরী বেগম নামে এক নারী। মঙ্গলবার রাতে হাসপাতালে অস্ত্রপচারের মাধ্যমে তিন মেয়ে ও এক ছেলে সন্তানের জন্ম দেন আদুরী। বর্তমানে ওই চার নবজাতককে হাসপাতালের নবজাতক নিবিড় পর্যবেক্ষণ বিভাগে রাখা হয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ওই চার নবজাতক ও মা আদুরী সুস্থ রয়েছেন।

রমেক হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার নাদিরা গ্রামের বাসিন্দা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে কর্মরত মনিরুজ্জামান বাঁধনের সঙ্গে ৮ বছর আগে আদুরী বেগম আশার বিয়ে হয়। সংসার জীবনে কোনো সন্তান না থাকায় হতাশায় ভুগছিলেন ওই দম্পতি। অনেক চিকিৎসার পর গত বছর অন্তঃসত্ত্বা হন আদুরী বেগম। আল্ট্রাসনোগ্রামে তার গর্ভে ৪ সন্তানের অস্তিত্ব ধরা পড়ে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আদুরীকে চিকিৎসকের পরামর্শে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নেতৃত্বে সফল অস্ত্রোপচারে ৩ মেয়ে ও এক ছেলের জন্ম হয়।

নবজাতকের বাবা মনিরুজ্জামান বলেন, ‘সন্তানের জন্য দীর্ঘ আট বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে। আল্লাহ আমাদের দিকে তাকিয়েছেন। এক সঙ্গে চার সন্তানের বাবা হতে পেরে আমি অনেক খুশি। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

রমেক হাসপাতালের গাইনী বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. ফারহানা ইয়াসমিন ইভা বলেন, ‘মঙ্গলবার রাতে আদুরী বেগমের সিজারিয়ান অপারেশন করা হয়েছে। এটি একটি ঝুঁকিপূর্ণ অপারেশন ছিল। আমরা সফলভাবে সেটি করতে পেরেছি। বাচ্চাদের ওজন কম রয়েছে ও বাচ্চাগুলো ৩২ সপ্তাহের। চারটি বাচ্চাই সিজারের পর কান্না করেছে।’

তিনি জানান, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের একটি দল বাচ্চাগুলোর খেয়াল রাখছে। বর্তমান বাচ্চারা ও মা সবাই ভালো আছে।