বিউগলের সুর আর বুটের শব্দে মুখর ছিল আখাউড়া স্থলবন্দর এলাকা। চৌকস বিজিবি ও বিএসএফ জওয়ানদের প্যারেডে কিছুক্ষণের জন্য মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে পড়েছিল সীমান্তের শূন্যরেখা। এ সময় দু'পাশে উপস্থিত দুই দেশের হাজারো মানুষ নয়নাভিরাম এ দৃশ্য উপভোগ করেন।

শনিবার বিকেলে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে আখাউড়া চেকপোস্টের শূন্যরেখায় বিজিবি ও বিএসএফ এই যৌথ 'রিট্রিট সেরিমনি'র আয়োজন করে। পরে বিজিবির পক্ষ থেকে বিএসএফকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও মিষ্টি উপহার দেওয়া হয়। বিএসএফও গাছের চারা ও মিষ্টান্ন উপহার দেয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিজিবির কুমিল্লা সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মারুফুল আবেদীন, সুলতান ব্যাটালিয়ন বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল আশিক হাসান উল্লাহ, সাংসদ উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম প্রমুখ। বিএসএফ কর্মকর্তাদের মধ্যে ছিলেন গোকুলনগর সেক্টর হেডকোয়ার্টার ডিআইজি রাকেশ রঞ্জন লাল, ১২০ ব্যাটালিয়ন বিএসএফ কমান্ড্যান্ট রত্নেশ কুমার প্রমুখ।

পরে কর্নেল মারুফুল আবেদীন বলেন, বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে চমৎকার বন্ধুত্বের মনোভাব বিরাজ করছে এবং তা বজায় থাকবে। মহান স্বাধীনতায় ভারতের অবদানের কথা আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করছি।

বিএসএফের রত্নেশ কুমার বলেন, 'বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে আমরা কভিডের পর দ্বিতীয়বারের মতো রিট্রিট সেরিমনি করেছি। এটা দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বের দৃষ্টান্ত। আমাদের যে সমস্যাই হোক, তা মিলেমিশে সমাধান করছি। ভগবানের কাছে প্রার্থনা করি, আমাদের বন্ধুত্ব এভাবেই বাড়তে থাকুক।'