হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ পৌরসভায় দুবাই প্রবাসীর স্ত্রী ৩ সন্তানের জননী কবিরুন বেগমের (৪৩) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার রাতে পৌরসভার মায়ানগরের বাবার বাড়ি থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত কবিরুন বেগম নবীগঞ্জ পৌর এলাকার মায়ানগর গ্রামের মস্টব আলীর মেয়ে। কবিরুনের স্বামী নবীগঞ্জ পৌর এলাকার আনমনু গ্রামের প্রয়াত মাতাব উল্লাহর ছেলে দুবাই প্রবাসী শাহ আলম।

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, কবিরুন শাহ আলমের দ্বিতীয় স্ত্রী। দীর্ঘদিন ধরে শাহ আলম তার স্ত্রী-সন্তানদের ভরণপোষণসহ কোনো খোজঁখবর নিতেন না। ফলে বাবার বাড়িতে ৩ সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করে আসছিলেন কবিরুন। তার বৃদ্ধ মা ভিক্ষা করে ও অন্যের বাড়িতে কাজ করে কোনো রকমে জীবন চালিয়ে আসছিলেন তিনি। প্রায় পাঁচ বছর আগে প্রবাসী স্বামীর বাড়ি থেকে বিতাড়িত হয়ে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেন। সন্তানদের ভরণপোষণ এবং জীবিকার তাগিদে বিদেশেও গিয়েছিলেন কবিরুন। দেশে ফিরে বৃদ্ধা মায়ের সঙ্গেই থাকতেন তিনি। বেশ কিছুদিন ধরে স্বামীর অবহেলা ও দারিদ্রের চাপে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিলেন করিরুন। এমন অবস্থায় রোববার বসতঘরের বাঁশের তীরের সঙ্গে ঝুলে থাকা অবস্থায় কবিরুনের লাশ মিললো। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠায়।

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ডালিম আহমেদের বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন। লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।