রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য প্রফেসর ডা. মুনসুর রহমানের ব্যক্তিগত সহকারীর দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় পানানগর ইউপি চেয়ারম্যানসহ চার আওয়ামী লীগ নেতার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রোববার রাজশাহী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

সম্প্রতি কালিনগর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে দুর্গাপুরের পানানগর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আজহার আলী খাঁর নেতৃত্বে বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কহিদুল ইসলাম, পানানগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক আবু মাস্টার ও মাহবুবুর রহমান লাল্টু রাজশাহী-৫ আসনের সাংসদ ডা. মনসুর রহমান রহমানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে পরদিন এমপির সমর্থকরা পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেন।

এরই মধ্যে গত ৩০ জানুয়ারি সাংসদ মুনসুর রহমানের ব্যক্তিগত সহকারি শফিকুল ইসলাম তরফদার বাদী হয়ে পানানগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আজহার আলী খাঁ, কহিদুল ইসলাম, আবু মাস্টার ও মাহবুবুর রহমানকে আসামি করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন।

এই মামলার আসামিরা উচ্চ আদালত থেকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন নেন। গত ৩০ মার্চ উচ্চ আদালত থেকে নেয়া জামিনের মেয়াদ শেষ হয়। পরবর্তীতে রোববার রাজশাহী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইকবাল বাহার এর আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন এই মামলার আসামিরা। কিন্তু শুনানি শেষে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইকবাল বাহার আসামিদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।