কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে গৃহবধূকে নির্যাতন করে মুখে বিষ দিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। বুধবার বিকেলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মরদেহ রেখে পালিয়ে যায় স্বামী ও স্বজনরা। 

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বুধবার বিকেল পাঁচটার দিকে স্বামী মনির হোসেন, মামা আমিরুল ও জেঠোতো ভাই আশরাফুলসহ কয়েকজন শাহানাজকে নিয়ে হাসপাতালে আসেন। তারা জানান, সে বিষ খেয়েছে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলে মরদেহ রেখে পালিয়ে যায় সবাই।

গৃহবধূ শাহানাজ একই ইউনিয়নের বুড়িরছড়া ভিতরেরকুটি এলাকার নুর ইসলামের মেয়ে। চাকের কুটি গ্রামের মৃত শামসুল হকের ছেলে মনির হোসেনের তৃতীয় স্ত্রী ছিলেন শাহানাজ। তাদের একটি মেয়ে ও একটি ছেলে সন্তান আছে। 

স্থানীয় ৮ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল মালেক জানান, ‘দুপুরে আমাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আসে শাহানাজ। সে বলেছিল, আর সংসার করবে না। সুদের ব্যবসা করার অজুহাতে শাশুড়ি তাকে গালমন্দ করছিল। সে বাড়িতে থাকবে না বলে জানিয়েছিল। পরে বিকেলে শুনি শাহানাজ বিষ খেয়েছে।’

নাগেশ্বরী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার নূরনবী আনছারী জানান, ‘যারা নিয়ে এসেছে তারা জানিয়েছে কীটনাশক খেয়েছে। মুখে ও শরীরের কাপড়ে কীটনাশকের গন্ধ পাওয়া গেছে।’

নাগেশ্বরী থানার ওসি (তদন্ত) তামবিরুল জানান, খবর পেয়ে হাসপাতাল থেকে সুরতহাল শেষে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।