সিলেট মহানগর পুলিশের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশ হেফাজতে আলোচিত রায়হান আহমদ হত্যা মামলার চার্জ গঠন করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে চার্জ গঠন করেন মহানগর দায়রা জজ মো. আব্দুর রহিম। ফলে এখন থেকে ওই মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার কাজ শুরু হলো।

গত মঙ্গলবার মামলার চার্জ গঠনের কথা থাকলেও আসামিদের দাখিল করা ডিসচার্জ পিটিশনের শুনানি না হওয়ায় চার্জ গঠন হয়নি। মঙ্গলবার শুনানিকালে আসামিদের পিটিশন নামঞ্জুর করে ছয় আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন আদালত। এর মধ্যে পলাতক থাকা কথিত সংবাদকর্মী আব্দুল্লাহ আল নোমানের অনুপস্থিতিতেই চার্জ গঠন করা হয়। অপর পাঁচ আসামি চার্জ গঠনকালে আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আগামী ১০ মে স্বাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে উল্লেখ করে বাদী পক্ষের আইনজীবী আবুল ফজল চৌধুরী সমকালকে জানিয়েছেন, মামলার ছয় আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে একজন পলাতক। চার্জ গঠনের সময় রায়হন আহমদ হত্যা মামলার মূল আসামি বন্দরবাজার ফাঁড়ির তৎকালীন বরখাস্ত হওয়া ইনচার্জ এসআই আকবর হোসনে ভুইয়াসহ পাঁচ আসামিকে কড়া নিরাপত্তায় আদালতে নিয়ে আসা হয়।

পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে নিহত নগরীর আখালিয়া নেহারিপাড়ার বাসিন্দা রায়হান আহমদ হত্যা মামলায় চয়জনকে অভিযুক্ত করে গত বছর অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে তদন্ত সংস্থা পিবিআই। ৩০ সেপ্টেম্বর সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক আবুল মোমেন অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন। ওইদিন তিনি মামলার একমাত্র পলাতক আসামি কোম্পানীগঞ্জের কথিত সংবাদকর্মী আব্দুল্লাহ আল নোমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। পরে তার মালামাল ক্রোক ও সর্বশেষ পত্রিকা বিজ্ঞপ্তি প্রদান করার পর চার্জ গঠনের তারিখ নির্ধারণ করেন আদালত। ১২ এপ্রিল তারিখ পেছানোর পর সোমবার চার্জ গঠন করা হয়।