ইয়াবা পাচার চক্রের হোতা একাধিক মামলার আসামি নুর ইসলামকে ধরতে গিয়ে তাকে না পেয়ে তার স্ত্রীকে মারধর ও আলমারি থেকে টাকা লুটের অভিযোগে সীতাকুণ্ড মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহাবুব মোরশেদকে ক্লোজড করা হয়েছে। সোমবার সমকালকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সীতাকুণ্ড সার্কেল) আশরাফুল করিম।

নুর ইসলামের স্ত্রী খালেদা আক্তারের লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার (১৬ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটায় সীতাকুণ্ড উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের ভাটেরখীল এলাকায় পরোয়ানাভুক্ত নুর ইসলামের নতুন বাড়িতে এসআই মাহাবুব মোরশেদসহ পাঁচ পুলিশ সদস্য তাকে গ্রেপ্তার করতে যান। তাকে না পেয়ে তার স্ত্রী খালেদা আক্তারকে আলমারির চাবি দিতে বলেন। তিনি চাবি দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে লাথি মারেন। এরপর চাবি নিয়ে ঘরের আলমারি তল্লশি করে গরু বিক্রি করা দেড় লাখ টাকা ও ছেলে রিয়াজ উদ্দিন হৃদয়ের স্কুল-কলেজের সার্টিফিকেট জব্দ করে নিয়ে যান পুলিশ সদস্যরা।

এসব অভিযোগ জানিয়ে খালেদা আক্তার গত রোববার দুপুরে চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার, সীতাকুণ্ড সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবে লিখিত অভিযোগ করেন। তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

অভিযুক্ত এসআই মাহবুব মোরশেদ বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ মিথ্যা। আপনারা ঘটনা জানতে পারেন। পরোয়ানাভুক্ত আসামি ধরতে গিয়ে এরকম ষড়যন্ত্রের শিকার হলে চাকরি করা যাবে না।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সীতাকুণ্ড সার্কেল) আশরাফুল করিম বলেন, রোববার রাতেই এসআই মাহবুব মোরশেদকে সীতাকুণ্ড মডেল থানা থেকে ক্লোজড করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আসামি নুর ইসলাম ইয়াবা পাচারকারী চক্রের হোতা। তার স্ত্রীকে মারধর ও টাকা লুটের ঘটনা মিথ্যা। তবে এসআই মাহবুবের আচরণগত সমস্য ছিলো।