মনিরামপুরের মনোহরপুরে মাহাবুবুর রহমান নামে এক গ্রাম পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর মাহাবুবুর এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূ তার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। মাহাবুবুর মনোহরপুর গ্রামের আবদুল খালেক সরদারের ছেলে। 

স্থানীয়রা জানান, মনোহরপুর গ্রামের এক গৃহবধূ তার শিশু কন্যার জন্মনিবন্ধন সনদ পেতে মাহাবুবুরের শরণাপন্ন হন। জন্মনিবন্ধন সনদ দেওয়ার নাম করে ১৬ এপ্রিল গভীররাতে মাহাবুবুর ওই গৃহবধূর বাড়িতে যান। এ সময় ওই গৃহবধূর স্বামী বাড়িতে না থাকার সুযোগে মাহাবুবুর ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এ সময় তার চিৎকারে আশাপাশের লোকজন এসে মাহাবুবুরকে হাতেনাতে আটক করে।

 প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় কৃষক ইয়াকুব আলী ও রাজু আহম্মদ জানান, হাতেনাতে আটকের পর মাহাবুবুর তাদের সঙ্গে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে পালিয়ে যায়। 

ইউপি সদস্য আনিচুর রহমান ও সদর আলী জানান, রোববার দুপুরের দিকে এই ঘটনায় ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে মাহাবুবুরের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। 

ইউপি চেয়ারম্যান আকতার ফারুক মিন্টু জানান, এই ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত গ্রাম পুলিশ সদস্যকে পরিষদে আসা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। 

মনিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর ই আলম সিদ্দিকী জানান, অভিযোগটি তদন্ত করতে নেহালপুর ফাড়ির ইনচার্জ এসআই আতিকুজ্জামানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। 

এসআই আতিকুজ্জামান জানান, সোমবার প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।