বগুড়ার আদমদীঘিতে মাত্র ৩০ মিনিটের ঝড়-বৃষ্টিপাতে ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ের তাণ্ডবে উঠতি ইরি-বোরা ফসল মাটিতে পড়ে গেছে। সেই সঙ্গে গাছপালাও উপড়ে গেছে। মঙ্গলবার ভোর রাত সাড়ে তিন টা থেকে চার টা পর্যন্ত উপজেলার উপড় দিয়ে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড় ও বৃষ্টিতে এই ক্ষয়ক্ষতি হয়।

আদমদীঘি উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানাযায়, এই উপজেলার একটি পৌরসভা ও ছয়টি ইউনিয়ন মিলে চলতি মৌসুমে ১২ হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে ইরিবোরো ধান চাষ করা হয়। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবারও ইরি বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা ছিল। ইতিমধ্যেই ধান গাছের শীষ বের হয়ে হলুদ বর্ণধারণ এবং কিছু জমিতে ধানের শীষ বের হতে শুরু করেছে। কৃষকরা ধানের শীষ দেখে বাম্পার ফলনের আশায় বুক বেঁধেছিলেন। কিন্তু হঠাৎ করে মঙ্গলবার ভোর রাতে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড় ও বৃষ্টিতে সবকিছু তছনছ নয়ে গেছে।

চাঁপাপুর ইউনিয়নের কাঞ্চনপুর গ্রামের কৃষক আসাদ জানান, এই ঝড়ে তার লাগানো বিঘা জমির মীষ বের হওয়া ইরি ধানের অধিকাংশ গাছই  মাটিতে পড়ে যায়। এছাড়া গাছপালা উপড়েও ক্ষতি হয়েছে।

আদমদীঘি সদরের তেঁতলিয়া গ্রামের কৃষক আফাজ মন্ডল ও দুলাল সাখিদার জানান, তাদের প্রায় সব জমির ধান গাছ মাটিতে পড়ে যায়। পুনরায় বৃষ্টিপাত হলে আরো বেশি ক্ষতি হবে।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের দেয়া তথ্যানুসারে, এই ঝড় ও বৃষ্টিপাতে উপজেলায় আনুমানিক সাত হাজার হেক্টর জমির উঠতি ইরিবোরা ফসলের ক্ষতি হয়েছে।

আদমদীঘি উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মিঠু চন্দ্র অধিকারি বলেন, ঝড়ে আনুমানিক ৩৪৫ হেক্টর জমির ধান হেলে পড়েছে। তবে পুনরায় ঝড়বৃষ্টি না হলে তেমন ক্ষতি হবেনা।