৫০ হাজার টাকা করে অর্থ সহায়তা পেল রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে সেচের পানির না পেয়ে আত্মহত্যাকারী দুই সাঁওতাল কৃষকের পরিবার।

বুধবার উপজেলার নিমঘুটু গ্রামে তাদের বাড়ি গিয়ে এই অর্থ তুলে দেন বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) চেয়ারম্যান বেগম আখতার জাহান।

তিনি প্রথমেই আত্মহত্যাকারী কৃষক রবি মারান্ডির বাড়ি যান। এ সময় তার বাড়িতে ছিলেন রবির মা দলিনা মুর্মু। চেয়ারম্যানকে দেখে কাঁদতে শুরু করেন দলিনা। বিএমডিএ চেয়ারম্যান তাকে সমবেদনা জানান। এ সময় দলিনা মুর্মুকে বিএমডিএর পক্ষ থেকে ৫০ হাজার টাকার আর্থিক সহায়তা দেন। তিনি সব সময় রবির পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দেন। এ সময় দলিনা মুর্মুকে একটি বয়স্কভাতার কার্ড করে দেওয়ার জন্যও তিনি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন সোহেলকে বলে দেন।

এরপর আখতার জাহান পাশেই আত্মহত্যা করা আরেক কৃষক অভিনাথ মারান্ডির বাড়ি যান। তবে এই বাড়িতে কেউ ছিলেন না। অভিনাথের বাড়ির পাশে তার মায়ের বাড়িতেও কাউকে পাওয়া যায়নি। পরে অভিনাথের স্ত্রী রোজিনা হেমব্রমকে সহায়তায় ৫০ হাজার টাকা বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন সোহেলকে দায়িত্ব দেন বিএমডিএ চেয়ারম্যান বেগম আখতার জাহান।

গত ২৩ মার্চ অভিনাথ মারান্ডি ও তার চাচাতো ভাই রবি মারান্ডি বিষপান করে আত্মহত্যা করেন। পরিবারের অভিযোগ, বিএমডিএর গভীর নলকূপ থেকে বোরো ধানের ক্ষেতে পানি দেওয়া হচ্ছিল না দুই কৃষককে। তাই তারা বিষপান করেন। এ নিয়ে থানায় দুই পরিবার আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করেছে। পরে পুলিশ গভীর নলকূপের অপারেটর সাখাওয়াতকে গ্রেপ্তার করে।