ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ পৌর এলাকায় চোরকে বাঁচাতে গিয়ে বিক্ষুব্ধ জনতার ইটপাটকেলের আঘাতে চার পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে।

সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে অজ্ঞাতপরিচয় ৪০০ জনকে আসামি করে সোমবার রাতে মামলাটি করেন পীরগঞ্জ থানার এসআই সাধন চন্দ্র রায়। বৃহস্পতিবার পীরগঞ্জ থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন

স্থানীয়রা জানান, গত শনিবার পীরগঞ্জ পৌর শহরের বায়তুল আমান জামে মসজিদে তারাবির নামাজ পড়ার সময় মোটরসাইকেল চুরি করে পালানোর সময় আটক হন রানীশংকৈল পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুর রাজ্জাক। পরে তাকে পিটুনি দিয়ে মসজিদে আটকে রাখা হয়।

মোটরসাইকেলসহ চুরির ৪৫টি মামলা থাকা রাজ্জাককে আটকের খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ওই মসজিদ এলাকায় শত শত মানুষ ভিড় করেন। পরে পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রেজাউল করিম পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুব্ধ জনতাকে শান্ত করার চেষ্টা করেন। তবে স্থানীয়রা রাজ্জাককে তাদের হাতে তুলে দেওয়ার দাবি জানান। এক পর্যায়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। এতে চার পুলিশ সদস্য আহত হন। পরে টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছুঁড়ে রাজ্জাককে নিয়ে থানায় ফেরে পুলিশ।

স্থানীয়রা জানান, রাজ্জাকের সংঘবদ্ধ মোটরসাইকেল চোরচক্র দীর্ঘদিন ধরে এলাকার তৎপর। তারা মোটরসাইকেল চুরির পর প্রকৃত মালিকের কাছে কল করে ৫০ থেকে ৮০ হাজার টাকা নিয়ে তা ফিরিয়ে দেন। ঠাকুরগাঁও জেলাসহ পার্শ্ববর্তী জেলার মোটরসাইকেল মালিকরা তাদের যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ।

এদিকে পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় অজ্ঞাতপরিচয় আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা হওয়ায় স্থানীয়দের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। এ মামলায় এখন পর্যন্ত অবশ্য কোনো অভিযান পরিচালনা করেনি পুলিশ। তবে অভিযানে যে কাউকে আটক করে মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।